এ বিষয়ে মেসার্স নুরু স্টোরের মালিক মো. ফরিদুল ইসলামের সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, ‘ভোরে আমাকে মুঠোফোনে কল করে জানানো হয়, দোকানে আগুন লেগেছে। এসে দেখি, দোকানে থাকা কসমেটিকস সামগ্রীসহ সব মালামাল পুড়ে গেছে। ধারণা করছি, ২০-২৫ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।’

ফরিদুল ইসলাম বলেন, ‘ঈদ উপলক্ষে দোকানে মালামাল তুলেছিলাম। আগুনে সব শেষ হয়ে গেল। এখন আমার কী হবে!’

ইলেকট্রনিকসের দোকানের মালিক রাজু বলেন, ‘খবর পেয়ে দোকানে এসে দেখি, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছেন। তাঁরা না এলে সম্পূর্ণ মার্কেট পুড়ে যেত। আগুনে আমার দোকানের সব মালামাল পুড়ে গেছে।’

এ বিষয়ে কুড়িগ্রাম ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের জ্যেষ্ঠ স্টেশন কর্মকর্তা আলী সাজ্জাদ বলেন, দেরিতে খবর পাওয়ায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বেশি হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন