বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে রুকন উদ্দিন নোওয়াপাড়া বাজারে অবস্থান করছিলেন। এ সময় কয়েক দুর্বৃত্ত তাঁর ওপর হামলা চালিয়ে ছুরিকাঘাত করেন। এ সময় ঘটনাস্থলে থাকা রাকিব মিয়া হামলাকারীদের বাধা দিতে গেলে তাঁকেও ছুরিকাঘাত করা হয়। স্থানীয় লোকজন সেখানে এলে হামলাকারীরা দৌড়ে পালিয়ে যায়।

পরে আহত দুজনকে উদ্ধার করে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর রুকন উদ্দিনের মৃত্যু হয়। এদিকে আহত রাকিবকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত রাকিবের অবস্থাও আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জাবেদুর রহমান জানান, হামলায় আহত দুই যুবককে বেশ কয়েকজন মিলে রাত সোয়া সাতটার দিকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এর মধ্যে গুরুতর আহত রুকন উদ্দিনের বুকের বাঁ পাশে ও পেটের ডান পাশে ছুরির মতো ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন ছিল। ক্ষতস্থান থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় হাসপাতালে আনার দুই থেকে তিন মিনিটের মধ্যেই তাঁর মৃত্যু হয়।

কেন্দুয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। ঘটনায় জড়িত অভিযোগে রাকিব হাসান নামের একজনকে আটক করা হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

স্থানীয় লোকজনের বরাত দিয়ে মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, মেহেদি হাসানসহ কয়েক তরুণ নিহত রুকন উদ্দিনের ভাগনিকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করতেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রুকন উদ্দিন এ ঘটনার প্রতিবাদ করেছিলেন। এ ঘটনা ঘটনার জেরে গতকাল রাতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন