বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার বিকেলে পাড়াকাটা গ্রামের কিশোরেরা দুই দলে ভাগ হয়ে স্থানীয় জনকল্যাণ উচ্চবিদ্যালয় মাঠে ফুটবল খেলে। খেলায় জয়-পরাজয় নিয়ে ওই সময় উভয় পক্ষের মধ্যে কথা–কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে বুধবার সকালে পাড়াকাটা গ্রামের স্বপন গাইনের ছেলে সজল গাইনের (১৭) সঙ্গে আজাহার মল্লিকের ছেলে জামাল মল্লিকের (৩৮) কথা–কাটাকাটি হয়। এরপর দুজনের পক্ষ নিয়ে গ্রামের বাসিন্দারা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। খবর পেয়ে কোটালীপাড়া থানা ও ভাঙ্গারহাট নৌ তদন্তকেন্দ্রের পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। এ সময় পুলিশ সদস্যরাও আক্রান্ত হন।

প্রায় ঘণ্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষে পুলিশসহ অন্তত ৫০ জন আহত হন। তাঁদের মধ্যে গ্রামের বাসিন্দা রিফাত শেখ (১৮), জগদীশ ফলিয়া (৭০) ফায়জুল মল্লিক (২২), মৃদুল গাইন (৩২), শিবনাথ (৬৫), রুস্তুম মল্লিক (৬৪), বাবুল মল্লিক (২৮), ইমন হালদার (১৫), নুরে আলম (১৫), নান্নু মল্লিক (৩৫), জসিম মোল্লা (৩৫), রনি মোল্লা (১৩), গোবিন্দ গাইন (৩২), আশুদেব গাইন (২৯), তন্ময় গাইন (৩৫) সুশান্ত গাইন (৩৯), উজ্জ্বল গাইন (১৭), সজীব ফলিয়া (২১), নিখিল গাইন (৪১), রসময় গাইন (৪০), তরিকুল মোল্লা (১৭), রহিমা বেগম (৫৫), নাদেম মোল্লা (১৭), বিধান গাইন (৩০), নিমচাঁদ (৬০), কৌশিক গাইন (১৭), প্রদীপ গাইন (৫৫), জয় গাইন (১৫), অনিমেশ ফলিয়া (১৫), সম্রাট গাইন (১৫), সুজিৎ গাইন (২১) ও বিষ্ণু গাইন (৩৫) এবং ভাঙ্গারহাট নৌ তদন্তকেন্দ্রের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মাসুদ, কনস্টেবল মহাসীন গাজী ও মাহাবুবুর রহমানকে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রসহ বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কোটালীপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। কোনো পক্ষ থেকেই এখন পর্যন্ত থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন