বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঘটনাটি খুলনার লবণচরা থানার কাজীপাড়া এলাকার। প্রথম দিকে ব্যাপারটিকে কেউ গুরুত্ব না দিলেও দিন যত বাড়ছে, মানুষের আগ্রহ তত বাড়ছে। মানুষের ধারণা ছিল, হয়তো কয়েক দিনের মধ্যেই গ্যাস শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু ২০ দিন ধরে একই অবস্থা চলায় ঘটনাটি এলাকায় বেশ আলোচনার জন্ম দিয়েছে। প্রতিদিনই উৎসুক মানুষ জাহাঙ্গীরের বাড়িতে জড়ো হচ্ছেন। কেউ আগুন জ্বালিয়ে রান্না করার চেষ্টা করছেন, আবার কেউ হাঁড়িতে পানি গরম করছেন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বাড়ির মালিক জাহাঙ্গীর প্রথম আলোকে বলেন, তিনি একটি গভীর নলকূপ স্থাপন করছিলেন। নলকূপের পাইপের পাশের একটি গর্ত দিয়ে শব্দ হচ্ছিল। এ সময় উৎসুক জনতার একজন ম্যাচ জ্বালালে সেখানে দপ করে আগুন জ্বলে ওঠে। ২০ দিন ধরে এই অবস্থা চলছে। মাটির নিচ থেকে গ্যাস উঠছে। ম্যাচ ধরালে আগুন জ্বলছে। মাটিচাপা দিলে আবার আগুন নিভে যাচ্ছে।

খুলনা নগরের টুটপাড়া ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের জ্যেষ্ঠ স্টেশন কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, মাটি থেকে গ্যাস ওঠার খবর পেয়ে গত সোমবার দুপুরে তাঁরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আপাতত সেখানে কোনো ঝুঁকি নেই বলে মনে হচ্ছে। মাটির নিচের দিকে গ্যাসের চাপ সামান্য বেশি। মাটি চাপা দিলে আবার গ্যাস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ওই গ্যাস থেকে যেন বড় কোনো দুর্ঘটনা না ঘটে, সে জন্য বাড়ির মালিককে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। গ্যাসে ভিন্ন ধরনের একটা গন্ধ আছে। তিনি বলেন, নলকূপ স্থাপনের জন্য কাঁচা গোবর ব্যবহার করা হয়। এ জন্য প্রথমে ধারণা করা হয়েছিল সেটি বায়োগ্যাস। কিন্তু বর্তমানে সেই ধারণা বদলে যাচ্ছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন