বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে খুলনা জেলায় রয়েছেন ৫০ জন, তাঁদের ৪৭ জনই খুলনা নগরের, বাগেরহাটে রয়েছেন ২ জন, মেহেরপুরে ৭ জন, সাতক্ষীরায় ৮ জন, যশোরে ২২ জন, কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহে ৬ জন করে,  চুয়াডাঙ্গায় ৫ জন, নড়াইল ও মাগুরায় ৩ জন করে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাসংক্রান্ত দৈনিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ৯ থেকে ১৮ মে এই ১০ দিনে খুলনা বিভাগে ৬২৯ জনের করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। প্রতিদিন গড়ে শনাক্ত হয়েছেন প্রায় ৬৩ জন। এই ১০ দিনে বিভাগে করোনায় মারা গেছেন ৯ জন। এর আগের ১০ দিনে (২৯ এপ্রিল-৮ মে) বিভাগে ৮২২ জনের করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়। সে সময় প্রতিদিন গড়ে শনাক্ত হয়েছিলেন ৮২ জন। ওই ১০ দিনে বিভাগে করোনায় মারা যান ২১ জন।

৯ থেকে ১৮ মে এই ১০ দিনে খুলনা বিভাগে ৬২৯ জনের করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাসায় ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১ হাজার ৬৫৮  জন। এর মধ্যে খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৫৩ জন, যার ৮ জন আছেন আইসিইউতে।

বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৫৯৭ জন। এর মধ্যে খুলনা জেলায় রয়েছেন ১৬০ জন, কুষ্টিয়ায় ১০৮ জন, যশোরে ৭৬ জন, ঝিনাইদহে ৫৪ জন, চুয়াডাঙ্গায় ৫৩ জন, সাতক্ষীরায় ৪৪ জন, বাগেরহাটে ৩৫ জন, নড়াইলে ২৫ জন, মাগুরায় ২৩ জন এবং মেহেরপুরে ১৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

খুলনা বিভাগের মধ্যে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হন চুয়াডাঙ্গায় গত বছরের ১৯ মার্চ। গত বছরের ২৩ জুলাই এ সংখ্যা ১০ হাজার এবং ১২ আগস্ট ১৫ হাজার ছাড়ায়। চলতি বছর ১ জানুয়ারি ২৫ হাজার এবং গত ১১ মে শনাক্তের সংখ্যা ৩২ হাজার ছাড়িয়েছে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, খুলনা বিভাগের জেলাভিত্তিক হিসাবে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৯ হাজার ৬১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছেন খুলনা জেলায়। এর মধ্যে খুলনা শহরেই শনাক্ত হয়েছেন ৭ হাজার ৮১১ জন। এ ছাড়া বাগেরহাটে শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৪৪৬ জন, চুয়াডাঙ্গায় ১ হাজার ৯০২ জন, যশোরে ৬ হাজার ৫৮২ জন, ঝিনাইদহে ২ হাজার ৮২৪ জন, কুষ্টিয়ায় ৪ হাজার ৭১২ জন, মাগুরায় ১ হাজার ২৪৬ জন, মেহেরপুরে ৯৩৫ জন, নড়াইলে ১ হাজার ৮৪৫ জন এবং সাতক্ষীরায় ১ হাজার ৩২৩ জন করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন