বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অভিযোগ পাওয়ার পর খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেল ঘটনাটি তদন্ত করছে। আজ বুধবার বিকেলে এক পক্ষের শুনানিও অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানতে চাইলে ওই সেলের প্রধান মোসা. তাসলিমা খাতুন প্রথম আলোকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মানুযায়ীই সব কাজ করা হচ্ছে। বিষয়টি তদন্তাধীন থাকায় বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না।

চলতি বছরের ২৬ জানুয়ারি রাতে ছোটনের ভাড়া বাসায় ডেকে নিয়ে ওই নারী শিক্ষককে যৌন নির্যাতন করা হয়। পরে ব্যাপারটির জন্য ছোটন ওই নারী শিক্ষকের কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ২৬ জানুয়ারি রাতে ছোটনের ভাড়া বাসায় ডেকে নিয়ে ওই নারী শিক্ষককে যৌন নির্যাতন করা হয়। পরে ব্যাপারটির জন্য ছোটন ওই নারী শিক্ষকের কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন। সম্প্রতি ওই ঘটনা নিয়ে ছোটন নানাভাবে হুমকি দেওয়া ও হয়রাণি করার চেষ্টা করলে ওই নারী শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলের কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ করেন। গত বৃহস্পতিবার ওই অভিযোগ পাওয়ার পর শনিবার যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেল বৈঠক করে ব্যাপারটি তদন্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়। ওই কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ছোটন দেবনাথকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের কার্যক্রম থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য ওই নারী শিক্ষকের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাঁর নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত শিক্ষক ছোটন দেবনাথ প্রথম আলোকে বলেন, ‘কী নিয়ে বা কেন অভিযোগ করা হয়েছে, তা এখনো বিস্তারিত কিছু জানি না। আমাকে কমিটির পক্ষ থেকে কিছু জানানো হয়নি। আর তদন্তের স্বার্থেই হয়তো বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সাময়িক অব্যাহতি দিয়েছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন