বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের ঊর্ধ্বগতি ও সর্বগ্রাসী দুর্নীতির প্রতিবাদ জানিয়ে এমরান সালেহ বলেন, সরকার দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যর্থ হয়ে অসত্য কথা বলে জনগণের সঙ্গে উপহাস করছে। এই সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়, সে কারণে জনগণের দুঃখ-দুর্দশায় তাদের কোনো ভ্রুক্ষেপও নেই। বর্তমান সরকারের দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা, ভ্রান্ত নীতির কারণে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের বাইরে। এমনিতেই জনগণের আয় সংকুচিত হয়েছে। মানুষের কর্মসংস্থান নেই। এর ওপর নিত্যপণ্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি যেন ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’। শুধু নিম্ন আয়ের মানুষ নয়, মধ্যবিত্তরাও দ্রব্যমূল্যের কষাঘাতে জর্জরিত।

বিএনপির এই নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলছেন, জিনিসের দাম সহনীয় আছে। দুর্নীতি-লুটপাটকারীদের কাছে দ্রব্যমূল্য সহনীয় হতে পারে কিন্তু জনগণের কাছে অসহনীয়। পবিত্র রমজানের আগেই নিত্যপণ্যের মূল্য জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখতে কার্যকর ও বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ নেওয়ার এবং টিসিবির মাধ্যমে স্বল্প মূল্যে সাধারণ মানুষের মধ্যে সরবরাহ করার আহ্বান জানান তিনি।

অনশন কর্মসূচিতে বিএনপি নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ আলী, আরফান আলী, কাজিম উদ্দিন, আবদুল হামিদ, আলী আশরাফ, হোসনে আরা নীলু, কাজী ফরিদ আহমেদ, মিজানুর রহমান, ইসহাক আলী, ময়মনসিংহ উত্তর জেলা যুবদলের সহসভাপতি আবদুল আজিজ খান, হুমায়ুন কবির, যুগ্মসম্পাদক আবদুল মালেক, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক রুহুল আমিন খান, কৃষক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, শ্রমিক দলের সভাপতি আবদুল গণি, সাধারণ সম্পাদক মশিউজ্জামান, উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক নাইমুর আরেফিন, পৌর ছাত্রদলের সদস্যসচিব তাজবীর হোসেন প্রমুখ বক্তব্য দেন। এ সময় বিএন‌পি ও সহ‌যো‌গী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন