বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বাচ্চাটি অপুষ্ট অবস্থায় জন্ম নিয়েছে। অপুষ্টির কারণে সে ওঠে দাঁড়াতে পারছে না।তাকে বাঁচানোর সব রকম চেষ্টা করা হচ্ছে।
ফরহাদ উদ্দিন, পশু চিকিৎসক, রাজশাহী সিটি করপোরেশন

চিড়িয়াখানা সূত্রে জানা গেছে, এখানে মোট ছয়টি গাধা ছিল। নতুন শাবকের জন্মের পর গাধার সংখ্যা দাঁড়াল সাতটি। বাচ্চাটার জন্মের পর ফিডার দিয়ে দুধ খাওয়ানো হয়েছিল। এরপর শাবকটি মায়ের পেছনে পেছনে হেঁটে বেড়িয়েছিল। শনিবার সকাল থেকে তার অবস্থা বেশ নাজুক। সে ওঠে দাঁড়াতে পারছে না।

default-image

শনিবার সকাল ১০টার দিকে চিড়িয়াখানায় গিয়ে দেখা যায়, গাধার শাবকটি কখনো মাথা তুলছে, আবার কখনো মাটিতে ঢলে পড়ছে। চিড়িয়াখানার দুজন কর্মচারী দুধের ফিডার নিয়ে বাচ্চাটাকে খাওয়ানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু সে নিজে থেকে ফিডার টেনে দুধ পান করতে পারছেন না। শাবকটিকে খুবই কাহিল মনে হচ্ছিল।

এই চিড়িয়াখানা রাজশাহী সিটি করপোরেশনের অধীনে পরিচালিত হয়। সিটি করপোরেশনের পশু চিকিৎসক ফরহাদ উদ্দিন চিড়িয়াখানার পশুদের চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। গাধার শাবকটির অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বাচ্চাটি অপুষ্ট অবস্থায় জন্ম নিয়েছে। অপুষ্টির কারণে সে ওঠে দাঁড়াতে পারছে না। তাকে বাঁচানোর সব রকম চেষ্টা করা হচ্ছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন