বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. মহিউদ্দিন বলেন, গতকাল রাতে সরওয়ারের বাড়ির উঠানে গিয়ে ছয়–সাতজন দরজা খোলার জন্য ডাকাডাকি করেন। একপর্যায়ে সরওয়ার প্রতিবেশী সাদেককে ফোন করেন। কিন্তু এ সময় সরওয়ার কোনো কথা বলেননি। পরে সাদেক তাঁর বাড়ির ছাদে উঠে দেখতে পান সরওয়ারের বাড়ির সামনে কাঁধে ব্যাগ নিয়ে একজন ও সঙ্গে আরও তিনজন লোক দাঁড়িয়ে আছেন। এ সময় সাদেক টর্চের আলো জ্বালাতেই তাঁরা সাদেককেও ডাকতে শুরু করেন।

মহিউদ্দিন বলেন, ‘তখন সাদেক ভয়ে ঘরের ভেতরে ঢুকে আমাকে ফোন দেন। এরপর আমি কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে সরওয়ারের বাড়িতে গিয়ে দেখি উঠানে তাঁর লাশ পড়ে রয়েছে। গত রাতে সরওয়ারের স্ত্রী বাড়িতে ছিলেন না। তিনি কোনাখালী এলাকায় একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। সরওয়ার একাই বাড়িতে ছিলেন।’

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের প্রথম আলোকে বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পূর্বশত্রুতার জেরে সরওয়ারকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। তাঁর বুকে একটি গুলি করা হয়েছে। শরীরের অন্য কোথাও কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই। লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে আজ সকাল সাড়ে আটটার দিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. হাসানুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন