বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিটের কমান্ডার আকতার আহমদ সিকদার বলেন, মেঘনাথ দে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করলেও সরকারি তালিকায় তাঁর নাম ছিল না।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গতকাল রাত আটটায় হাঙর খালের পাড়ের বাঁশঝাড়ের মধ্যে এক বৃদ্ধের লাশ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

মেঘনাথের ছেলে তপন দে প্রথম আলোকে বলেন, ‘বাবা বেশ কিছুদিন বান্দরবানে আমার বাসায় ছিলেন। কয়েক দিন আগে তিনি পদুয়ায় নিজবাড়িতে চলে আসেন। কিন্তু গত রোববার থেকে বাবাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। আত্মীয়স্বজনের বাড়িসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যায়নি।’

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিটের কমান্ডার আকতার আহমদ সিকদার প্রথম আলোকে বলেন, মেঘনাথ দে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করলেও সরকারি তালিকায় তাঁর নাম ছিল না। বেশ কয়েকবার মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটি ও মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ে তাঁর নাম ও কাগজপত্র পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু এত দিনেও তাঁর নাম সরকারি তালিকাভুক্ত হয়নি। তিনিও এ ব্যাপারে অনেকটা উদাসীন ছিলেন। তবে সাম্প্রতিক সময়ে যে যাচাই-বাছাই হয়েছে, সেখানে তাঁর নাম তালিকাভুক্ত হওয়ার কথা।

লোহাগাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকের হোসাইন মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, মৃতের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, কয়েক দিন আগেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য আজ সকালে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে তাঁর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন