বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গত মঙ্গলবার দিনভর লাখাই ঘুরে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলেছেন এই প্রতিনিধি। তাঁরা জানান, এ উপজেলায় সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে রয়েছেন লাখাই সদর ইউনিয়নের বাসিন্দারা।আমানুল্লাহপুর গ্রামের বাসিন্দা টমটমচালক মোহাম্মদ রাহুল বলেন, লাখাই বাজার থেকে কালাউক পর্যন্ত দূরত্ব ছয় কিলোমিটার। এই ছয় কিলোমিটার অত্যন্ত নিচু। বর্ষা মৌসুমে সড়কটির অধিকাংশই ডুবে যায়। বিশেষত শিকনপুর ব্রিজ থেকে লাখাই বাজার পর্যন্ত চার কিলোমিটার প্রায় চার মাস পুরোপুরি পানির নিচে থাকে। এ সময় সদর ইউনিয়নের বাসিন্দারা যাতায়াতে বিড়ম্বনায় পড়েন।

লাখাই বাজার প্রায় দেড় শ বছরের বেশি পুরোনো। যোগাযোগবিড়ম্বিত হওয়ায় এ বাজার ক্রমে জৌলুশহীন হয়ে পড়ছে। এখানকার মানুষের স্বাভাবিক চলাচল নিশ্চিত করতে দ্রুত নিচু সড়কটি উঁচু করে বছরের ১২ মাসের জন্য যানবাহন চলাচল নিশ্চিত করতে হবে।

স্বজন গ্রামের শরিফ আহমদ বলেন, লাখাই বাজার প্রায় দেড় শ বছরের বেশি পুরোনো। যোগাযোগবিড়ম্বিত হওয়ায় এ বাজার ক্রমে জৌলুশহীন হয়ে পড়ছে। এখানকার মানুষের স্বাভাবিক চলাচল নিশ্চিত করতে দ্রুত নিচু সড়কটি উঁচু করে বছরের ১২ মাসের জন্য যানবাহন চলাচল নিশ্চিত করতে হবে।

শিকনপুর ব্রিজ এলাকা থেকে লাখাই বাজারগামী নৌকার মাঝি রাজিকুল ইসলাম বলেন, এ পথে প্রায় ৫০টি নৌকা প্রতিদিন চলাচল করে। পাঁচ থেকে ছয় হাজার মানুষ এসব নৌকায় যাতায়াত করেন।জানতে চাইলে ইউএনও লুসিকান্ত হাজং বলেন, বর্ষা মৌসুমে চার মাস লাখাই ইউনিয়ন আসলেই বিচ্ছিন্ন দ্বীপের রূপ নেয়। লাখাই বাজারে যাতায়াতের জন্য একটি সাব-মার্সিবল রাস্তা (ডুবো সড়ক) রয়েছে। এ রাস্তা উঁচু করে নির্মাণের জন্য পরিকল্পনা রয়েছে। স্থানীয় সাংসদ মো. আবু জাহির এ নিয়ে কাজ করছেন।

default-image

স্থানীয় ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, সিলেট বিভাগের শেষ সীমানায় ১৯৬ দশমিক ৫৬ বর্গকিলোমিটার আয়তন নিয়ে লাখাই উপজেলা গঠিত। এর সদর হিসেবে গণ্য করা হতো লাখাই বাজারকে। এ বাজার কেন্দ্র করে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। কিন্তু ১৯৮৩ সালে এখান থেকে সাত কিলোমিটার দূরে বামৈ ইউনিয়নের কালাউক এলাকায় থানার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পর লাখাই বাজার থেকে সবকিছু সরে যেতে থাকে। সেখানে একে একে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স তৈরি হয়। তখন লাখাই বাজার জৌলুশ হারাতে থাকে।

পূর্ব রহিতনসি গ্রামের মোহাম্মদ শামীম বলেন, ‘গ্রামের বয়স্কদের মুখে শুনেছি, সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো চলে যাওয়ার পরও কাগজে-কলমে লাখাই ইউনিয়নই সদর ইউনিয়ন হিসেবে গণ্য হচ্ছে। এমনকি লাখাই বাজারকেও সদর বাজার বলা হয়ে থাকে। কিন্তু যেহেতু কোনো প্রতিষ্ঠানই আর এখানে নেই, তাই লাখাই বাজার ও ইউনিয়নবাসী এরপর থেকে উন্নয়ন বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন।’

স্থানীয় লোকজন আরও জানান, লাখাই বাজারে সদর ইউনিয়নের লোকজন ছাড়াও পাশের কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের অন্তত ১০ গ্রামের মানুষ কেনাকাটা করতে আসেন। এ বাজারে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষের আগমন ঘটে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন