default-image

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার চান্দপুর চা-বাগান এলাকা থেকে মঙ্গলবার দুপুরে নানা জাতের ১২০টি পাখিসহ তিন ব্যক্তিকে আটক করেছে বন বিভাগ। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাঁদের প্রত্যেককে তিন মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

উপজেলা প্রশাসন ও বন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চুনারুঘাট উপজেলার চান্দপুর চা–বাগান এলাকায় মঙ্গলবার একদল শিকারি ফাঁদ পেতে পাখি শিকার করছিলেন। এ খবর পেয়ে উপজেলার সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের বন কর্মকর্তা মোতালেব হোসেন ও মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে বন বিভাগের লোকজন অভিযান চালিয়ে মো. আবদুল কাইয়ুম (৪৬), রুকু মিয়া (৪৮) ও আল আমিনকে (২৬) আটক করে। তাঁদের বাড়ি উপজেলার বালিয়ারী গ্রামে। ওই ব্যক্তিদের কাছ থেকে দোয়েল, শালিক, কাঠঠোকরা, বুলবুলি ও ভিমরাজ জাতির ১২০টি পাখি জব্দ করা হয়।

দুপুরে আটক ব্যক্তিদের নিয়ে যাওয়া হয় উপজেলা কমিশনার (ভূমি) মিলটন চন্দ্র পালের কাছে। তিনি ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে প্রত্যেককে তিন মাস করে কারাদণ্ড দেন। ইউএনও সত্যজিৎ রায় তালুকদার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বন্য প্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইনে এ দণ্ড দেওয়া হয়।

এর আগে গতকাল সোমবার বিকেলে উপজেলার চান্দপুর থেকে আরও চার শিকারিকে ৩২টি পাখিসহ আটক করেছিল বন বিভাগ। পরে তাঁদের চুনারুঘাটের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তকা (ইউএনও) সত্যজিৎ রায় তালুকদারের কাছে নিয়ে যাওয়া হলে তিনি ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সিদ্দিক আলী নামের এক ব্যক্তিকে এক মাসের কারাদণ্ড দেন। তাঁর বাড়ি উপজেলার বুড়িয়া বড়বাড়ি গ্রামে। তাঁর সঙ্গে আটক হওয়া বাকি তিনজন অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় তাদের পরিবারের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0