default-image

বরগুনার পাথরঘাটার দক্ষিণ চরদুয়ানী গ্রামের একটি হেরিংবন্ড (ইট বিছানো) সড়কের একাংশের প্রায় দুই হাজার ইট তুলে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় প্রভাবশালী বদরুল হুদা ওরফে বনির বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার(ইউএনও) হস্তক্ষেপে ও স্থানীয় লোকজনের বাধায় সড়কের ইট তুলে নেওয়ার কাজ বন্ধ করা হয়েছে।

অভিযুক্ত বদরুল হুদা স্থানীয় চরদুয়ানী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হাফিজউদ্দিন আহমেদের ছোট ছেলে ও পাথরঘাটা উপজেলা যুবলীগের সদস্য।

সন্ধ্যার দিকে ইট ট্রাকে করে বদরুল হুদার নির্দেশে শ্রমিকেরা নেওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয় লোকজন বাধা দেন। এ সময় এ ঘটনা তাৎক্ষণিকভাবে ইউএনওকে জানালে তিনিও ইট নিতে বাধা দিতে বলেন স্থানীয় লোকজনকে।

স্থানীয় মজিবর বিশ্বাস, ইকবাল বিশ্বাসসহ অন্তত ১৫ জন বাসিন্দা অভিযোগ করেন, চরদুয়ানী ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজউদ্দিন আহমেদের ছেলে বদরুল হুদা গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল নয়টার দিকে তিনজন শ্রমিক নিয়ে দক্ষিণ চরদুয়ানী গ্রামের ওই সড়কের ইটের সলিংয়ের প্রায় দুই হাজার ইট তুলে নেন। পরে ওই ইট সন্ধ্যার দিকে ট্রাকে করে বদরুল হুদার নির্দেশে শ্রমিকেরা নেওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয় লোকজন বাধা দেন। এ সময় এ ঘটনা তাৎক্ষণিকভাবে পাথরঘাটার ইউএনও সাবরিনা সুলতানাকে জানালে তিনি ইট নিতে বাধা দিতে বলেন স্থানীয় লোকজনকে। তাঁরা ইউএনওর কথায় আশ্বস্ত হয়ে ট্রাক থেকে ইট রেখে দেন। পরে ইউএনও সাবরিনা সুলতানা ফোনে বদরুল হুদার সঙ্গে কথা বলে সড়ক নির্মাণ করে দেওয়ার নির্দেশ দেন। ওই নির্দেশ পেয়ে বদরুল হুদা আজ শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ৫ জন শ্রমিক দিয়ে সড়কে ইটের সলিং দেওয়া শুরু করেন।

বিজ্ঞাপন

সরেজমিনে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ওই সড়কে দেখা যায়, দক্ষিণ চরদুয়ানী বিশ্বাসবাড়ি সড়কের পশ্চিম অংশে ওই সড়কের ইট তুলে স্তূপ করে রাখা আছে। স্তূপ থেকে ইট নিয়ে সড়কে ইটের সলিংয়ের কাজ করছেন পাঁচ শ্রমিক। এ সময় ওই সড়কে কাজে ব্যস্ত প্রধান মিস্ত্রি আল আমিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘বৃহস্পতিবার দিনভর এ রাস্তার ইট বনি ভাইয়ের (বদরুল হুদা) নির্দেশে ওঠানো হয়েছিল। পরে শুক্রবার সকাল থেকে ওই সড়কে পুনরায় ইট বিছানোর কাজ চলছে।’

default-image

অভিযোগের বিষয়ে বদরুল হুদা প্রথম আলোকে বলেন, ‘পাশেই বেড়িবাঁধে আমার মাটির কাজ চলছে। তাই ওই বেড়িবাঁধের স্লপের (ঢাল)জন্য সড়কের ইট তুলে পরিষদের সামনে রাখার চিন্তা করছিলাম। কিন্তু স্থানীয় লোকজন তা করতে না দেওয়ায় আবার ইট বিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

এ ব্যাপারে পাথরঘাটার ইউএনও সাবরিনা সুলতানা প্রথম আলোকে বলেন, স্থানীয় বাসিন্দাদের সহযোগিতায় বদরুল হুদার ইট তুলে নেওয়ার কাজে বাধা দেওয়া হয়েছিল। পরে তাঁর মাধ্যমেই ইট বিছানোর কাজ চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন