বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুল কবির প্রথম আলোকে বলেন, গ্রেপ্তার প্রিয়মকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হচ্ছে।

গতকাল বুধবার রাতে নগরের সিআরবি সাত রাস্তার মাথা এলাকা থেকে প্রিয়মকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এর আগে হত্যা মামলায় এক কিশোরকে আইনি হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

ওসি জাহিদুল কবির প্রথম আলোকে বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডে অংশ নেওয়া কয়েকজনের একজন প্রিয়ম। ঘটনাস্থল থেকে সংগ্রহ করা ক্লোজড সার্কিট (সিসি) ক্যামেরায়ও দেখা যায়, আসকারকে ছুরিকাঘাতের সময় ধরে রেখেছিলেন প্রিয়ম, যাতে তিনি দৌড়ে পালাতে না পারেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদেও ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন তিনি।

পুলিশ সূত্র জানায়, প্রিয়মের বিরুদ্ধে ২০১৯ সালে প্রতিপক্ষকে ছুরিকাঘাতের মামলা রয়েছে। ২০১৯ সালে দ্রুত বিচার আইনের করা এ মামলা বিচারাধীন।

গত শুক্রবার রাতে নগরের জামালখান চেরাগী মোড় এলাকায় আসকারকে ছুরিকাঘাতে খুন করা হয়। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র বলছে, ভাসমান দোকানে চাঁদাবাজি ও আড্ডার জায়গা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। আসকার নগরের বিএএফ শাহীন কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। ওই ছাত্রলীগ কর্মী হিসেবে এলাকায় পরিচিত ছিলেন।

এ ঘটনায় ৭ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতপরিচয় ১০-১২ জনকে আসামি করে মামলা করেন আসকারের বাবা তারেক। আসামিদের বয়স ১৭ থেকে ২১ বছরের মধ্যে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন