বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উপজেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে গেছে, এ উপজেলায় তৃতীয় ধাপে ২৮ নভেম্বর ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যপদে ভোট গ্রহণ হবে। মনোনয়ন যাচাই–বাছাই হয়েছে ৪ নভেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১১ নভেম্বর।

হাটহাজারীর বুড়িশ্চর ইউপিতে তাঁরা দুই ভাইসহ মোট চারজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন। অন্যরা হলেন বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান মুহাম্মদ রফিক ও আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মুহাম্মদ জাহেদ হোসেন। এদের মধ্যে মুহাম্মদ রফিক স্বতন্ত্র প্রার্থী। গতবারও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়ে নির্বাচনে জয়ী হন। অবশ্য বাসিন্দারা তাঁকে বিএনপি–সমর্থক চেয়ারম্যান হিসেবে চেনেন।

স্থানীয় ভোটার ও বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় ভাই জসিম উদ্দিন গতবারের ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে লড়াই করে হেরে যান। বর্তমানে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির সদস্য ও তাঁর ছোট ভাই বেলাল উদ্দিন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। একই পদে একই দলের একই পরিবারের দুজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হওয়ায় ভোটারদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

এ উপজেলায় গতকাল ছিল মনোনয়নপত্র যাচাই–বাছাইয়ের শেষ দিন। গতকাল ভাইয়ের মনোনয়নপত্র বৈধ বলে ঘোষণা করে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা আনোয়ার খালেদ। এরপর তাঁদের নির্বাচনে অংশ নেওয়া নিশ্চিত হয়ে গেছে। যদিও ১১ নভেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় রয়েছে।


এ বিষয়ে ওই ইউপির ভোটার মুহাম্মদ ইকবাল হোসেন বলেন, তাঁরা দুই ভাই আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেন। আবার একই পদের প্রার্থীও হয়েছেন। এটা তাঁদের একটা নির্বাচনে জেতার কৌশল বলে মনে করেন তিনি।

দুই ভাইয়ের চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার ব্যাপারে বড় ভাই মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন গতকাল রাতে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি গতবার নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে এগিয়ে ছিলাম। কিন্তু সামান্য ভোটের ব্যবধান দেখিয়ে আমাকে পরাজিত দেখানো হয়েছে। আমি আশা করছি এবার আমাকে ভোটাররা বিপুল ভোটে নির্বাচিত করবেন।’ ছোট ভাই সরকারদলীয় প্রার্থী হওয়ার পরেও কেন তিনি নির্বাচনে নামলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনগণ তাঁর পক্ষে থাকায় তিনি নির্বাচন করছেন।

একই বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মুহাম্মদ বেলাল উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘বড় ভাইয়ের আগ্রহ থাকায় তিনি প্রার্থী হয়েছেন। তিনি অবশ্য গতবারও চেয়ারম্যান পদে লড়ে ছিলেন। দেখা যাক কি হয়। প্রত্যাহারের সময় তো আছে।’

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাচন ও রিটার্নিং কর্মকর্তা আনোয়ার খালেদ প্রথম আলোকে বলেন, যাচাই–বাছাইয়ে বুড়িশ্চর ইউনিয়নের দুই ভাইয়ের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন