বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন চরগোয়ালিনী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক মো. কালু বাঘা, ইউনিয়ন যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক নিলুফা বেগম, ১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. খোরশেদ, ৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. হারুনুর রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক মো. জয়নাল আবেদীন, ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াজল, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. এস এম ফয়জুর রহমান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মো. শহিদুল্লাহকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে। তাঁকে সব সময় ‘মাতাল, মাতাল’ মনে হয়। তিনি ভালোভাবে কথাও বলতে পারেন না। তাঁর বিরুদ্ধে একাধিকবার দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি ইউনিয়নের দুর্যোগসহনীয় গৃহনির্মাণ প্রকল্পের ঘর বরাদ্দে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ এবং দুটি ঘর তাঁর আপন ভাতিজার নামে বরাদ্দ নিয়ে তাঁর বাড়িতেই নির্মাণ করেন। এ ঘটনায় তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় ১২ জুলাই স্থানীয় সরকার বিভাগ ওই চেয়ারম্যানকে কেন সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হবে না, তা জানতে চেয়ে নোটিশ করেছিল। বিষয়টি ঝুলন্ত অবস্থায় ইউপি নির্বাচন শুরু হয়ে যায়। এই ধরনের একজন দুর্নীতিবাজকে ইউনিয়নবাসী মেনে নেবে না।

ফলে কেন্দ্রঘোষিত প্রার্থী মো. শহিদুল্লাহর মনোনয়ন বাতিল করে মনোনয়নপ্রত্যাশী ত্যাগী নেতাদের মধ্যে যেকোনো একজনকে নৌকার মনোনয়ন দেওয়ার দাবি করা হয়। এই বিষয়ে তাঁরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও স্থানী সাংসদ ধর্মপ্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান দুলালের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন