বিজ্ঞাপন

আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জামালপুর পৌরসভা প্রাঙ্গণে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জামালপুর-৩ (মেলান্দহ-মাদারগঞ্জ) আসনের সাংসদ মির্জা আজম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ব ম জাফর ইকবাল, পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আজিজুর রহমান ডল, পৌরসভার প্যানেল মেয়র ফজলুল হক প্রমুখ।

করোনা রোগী ও দরিদ্র মানুষের জন্য জামালপুর পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন এই সেবা দিতে স্থানীয় তরুণদের নিয়ে একটি দল গঠন করেছেন। করোনার রোগীদের সহায়তার জন্য সব সময় প্রস্তুত থাকবে এই কর্মী বাহিনী।

হ্যালো মেয়র কার্যক্রমের হেল্পলাইন নম্বর ০১৯৩০২২১১০০। প্রাথমিকভাবে নতুন একটি অ্যাম্বুলেন্স ও অর্ধশত অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে এ সেবা কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

জামালপুরের পৌর মেয়র মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন বলেন, পৌরসভায় আগের তুলনায় করোনা রোগী ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিদিন সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলছে। এই সংকটময় সময়ে মানুষের পাশে থাকতে এই উদ্যোগের চিন্তা মাথায় আসে। মানুষের দুয়ারে সেবা পৌঁছে দিতে চান তাঁরা। এ জন্য নতুন একটি অ্যাম্বুলেন্স দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে একঝাঁক তরুণ কর্মী বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে ২৪ ঘণ্টা। পৌর শহরের যে কারও অ্যাম্বুলেন্স অথবা অক্সিজেন প্রয়োজন হলে শুধু এই কার্যক্রমের হেল্পলাইনে জানানোর সঙ্গে সঙ্গে হ্যালো মেয়র টিম ওই রোগীর পাশে গিয়ে দাঁড়াবে এবং সব ধরনের সহায়তা দেবে।

মেয়র আরও বলেন, অ্যাম্বুলেন্স সেবা সব ধরনের রোগীরাই পাবেন। প্রসূতি ও দরিদ্র রোগীরাও পাবেন। অনেক সময় অ্যাম্বুলেন্সের কারণে অনেক রোগী মারা যান। এখন থেকে তাঁরা চেষ্টা করবেন, কোনো রোগী যাতে অ্যাম্বুলেন্সের জন্য মারা না যান।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, একজন পৌর মেয়রের একটি গুণই যথেষ্ট, সেটি হলো সৎ থাকা। পৌরবাসীর সেবা দিতে ইতিমধ্যে মেয়র দিন–রাত কাজ করছেন। এ ধরনের উদ্যোগ সারা দেশে এটিই প্রথম। এই সংকটময় সময়ে মানুষের পাশে থাকাই মহৎ কাজ। পৌরসভার এই ‘হ্যালো মেয়র’ অ্যাম্বুলেন্স ও অক্সিজেন সেবা দেওয়ার জন্য একঝাঁক তরুণের এই টিম দেশে মাইলফলক হয়ে থাকবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন