বিজ্ঞাপন

আজ মঙ্গলবার সকালে ষোলশহরে বিমানের কার্যালয়ে কথা হয় সাতকানিয়ার সৈয়দ হোসেনের সঙ্গে। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, জুনের প্রথম সপ্তাহে যেতে না পারলে সৌদি আরবে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে যাবে। কোয়ারেন্টিনের জন্য হোটেল ভাড়া কে করবে কীভাবে করবে, তা–ও নিশ্চিত হতে পারেননি তিনি। তিনি জানান, সাতকানিয়া থেকে এ নিয়ে দুবার বিমান অফিসে এসেছেন। তবে টিকিট বুকিং নিশ্চিত করতে পারেননি।

যাঁদের করোনার দুই ডোজ টিকা নেওয়া হয়েছে এবং দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ১৪ দিন পার হয়েছে, তাঁদের টিকিট বুকিংয়ের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে।

বিমানের কর্মকর্তারা জানান, সৌদিপ্রবাসীদের করোনার টিকার পূর্ণ ডোজ না নেওয়া থাকলে সাত দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। এ ছাড়া হোটেলে প্রবেশের আগে এবং কোয়ারেন্টিন শেষে নমুনা পরীক্ষা করাতে হবে। টিকিট নিশ্চিত করতে হলে হোটেল বুকিং করে যেতে হবে।

সৌদি সরকারের নতুন বিধিনিষেধের কারণে ২০ মে থেকে সৌদি আরবে ফ্লাইট বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ বিমান। বাংলাদেশ বিমানের জনসংযোগ বিভাগ ২৩ মে বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, কোয়ারেন্টিন প্যাকেজ নিশ্চিত করা সাপেক্ষে ২৯ মে থেকে সৌদি আরবে আবার ফ্লাইট চালু হবে। সৌদিগামী যাত্রীদের হোটেল বুকিংসহ কোয়ারেন্টিন প্যাকেজ ও বিমানের আসন সংরক্ষণের জন্য কাছের বিমান সেলস কাউন্টারের যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হয়। ভিসার মেয়াদের ওপর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীদের আসন সংরক্ষণ করা হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। এই বিজ্ঞপ্তির পর বাংলাদেশ বিমানের যাত্রীরা চট্টগ্রামের ষোলশহরের কার্যালয়ে ভিড় জমাচ্ছেন।

সৌদিপ্রবাসী আবদুল হাকিম প্রথম আলোকে বলেন, ‘কোয়ারেন্টিনের জন্য ৬০–৭০ হাজার টাকা খরচ করতে হবে। নির্ধারিত হোটেল বুকিংসহ অনেক কিছুই এখনো স্পষ্ট জানি না। বাড়তি খরচের পাশাপাশি টিকিট বুকিং করতে না পারায় আমরা হতাশ।’
বাংলাদেশ বিমানের চট্টগ্রামের একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, যাঁদের করোনার দুই ডোজ টিকা নেওয়া হয়েছে এবং দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ১৪ দিন পার হয়েছে, তাঁদের টিকিট বুকিংয়ের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। তবে পূর্ণ ডোজ টিকা না নেওয়া থাকলে তাঁদের হোটেল বুকিংসহ পালনযোগ্য আনুষ্ঠানিকতা কী হবে, তা এখনো সৌদি আরব থেকে নিশ্চিত করা হয়নি। সব কটি উড়োজাহাজ সংস্থা এই অনিশ্চয়তায় আছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন