বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, চার দিন ধরে তাপমাত্রা দ্রুত কমতে শুরু করলেও আগামী দুই দিনের মধ্যে তাপমাত্রা আবার কিছুটা বাড়তে পারে। বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ সৃষ্টির মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। লঘুচাপটি নিম্নচাপে পরিণত হলে আকাশে মেঘের পরিমাণ বাড়তে পারে। নিম্নচাপটি ৩ থেকে ৪ ডিসেম্বরের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদে রূপ নিতে পারে। নামটি সৌদি আরবের আবহাওয়াবিদদের দেওয়া।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক প্রথম আলোকে বলেন, আবহাওয়ার বিভিন্ন গাণিতিক মডেল ব্যবহার করে তাঁরা ধারণা করছেন লঘুচাপটি সৃষ্টি হওয়ার পর তা দ্রুত ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। তবে সেটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে কি না, তা শতভাগ নিশ্চিত হতে আরও দু–এক দিন লাগবে। এখন পর্যন্ত পাওয়া পূর্বাভাস অনুযায়ী তা ভারতের ওডিশা উপকূলে আঘাত হানার সম্ভাবনা বেশি।

এদিকে শীত বাড়তে থাকায় দেশের বেশির ভাগ এলাকায় ভোরে শিশির আর রাতে কুয়াশা বাড়তে শুরু করেছে। বিশেষ করে নদীতীরবর্তী এলাকাগুলোতে কুয়াশা বেশি দেখা যাচ্ছে। রাজধানীসহ বড় শহরগুলোর তাপমাত্রা কমতে শুরু করায় নগরবাসী শীতবস্ত্র গায়ে জড়িয়ে বাইরে বের হতে শুরু করেছেন। বর্তমানে উত্তরাঞ্চল ও সিলেট বিভাগে শীতের দাপট বেশি রয়েছে।

এদিকে শীত মৌসুম শুরু হওয়ায় রাজধানীসহ দেশের বেশির ভাগ শহরের বায়ুর মান প্রতিদিনই খারাপ থাকছে। ধুলা, ধোঁয়া আর কুয়াশায় শহরগুলোতে এখন ধোঁয়াশাচ্ছন্ন পরিস্থিতি বিরাজ করছে। সন্ধ্যার পরপর শহরগুলোর বেশির ভাগ এলাকায় স্বাভাবিক দৃষ্টিসীমা ঢাকা পড়ছে।

বিশ্বের বায়ুর মান পর্যবেক্ষণকারী আন্তর্জাতিক সংস্থা এয়ার ভিজ্যুয়ালের হিসাবে ঢাকার বায়ু আজও খুব অস্বাস্থ্যকর ছিল। বিশ্বের প্রধান ১০০ শহরের মধ্যে বায়ুর মানে খারাপের দিক থেকে তৃতীয় অবস্থানে ছিল শহরটি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, আজ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল শ্রীমঙ্গলে ১২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের বেশির ভাগ এলাকার তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে গেছে। চুয়াডাঙ্গা ও যশোরের তাপমাত্রাও একই রকমের আছে। রাজধানীর তাপমাত্রা আজ দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে ১৬ দশমিক ৫ ডিগ্রিতে দাঁড়িয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন