দুই কৃষকের মৃত্যুর বিষয়ে প্রতিবেদনে কোনো মন্তব্য না করার ব্যাপারে আবু জুবাইর হোসেন বলেন, এটা ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ছাড়া বলা যায় না। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন আসার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে। তবে দুজনের পরিবার যে অভিযোগ করছে, তা তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে আছে। পাশাপাশি এলাকার অন্য কৃষকদের বক্তব্যও আছে।

একই ঘটনায় বিএমডিএও আলাদা একটি তদন্ত কমিটি করেছিল। সেই প্রতিবেদন তৈরির পর সুপারিশের ভিত্তিতে গতকাল রোববার অপারেটর সাখাওয়াতকে স্থায়ী বরখাস্ত করা হয়। বিএমডিএর নির্বাহী পরিচালক আবদুর রশীদ বলেন, ‘তদন্তে কিছু অনিয়ম পাওয়া গেছে।’ কী অনিয়ম—জানতে চাইলে তিনি বলেন, ১২৫ টাকা ঘণ্টার পানিতে ১৩৫ টাকা নিতেন অপারেটর।

বিএমডিএ চেয়ারম্যান ঢাকায় অবস্থান করছেন। তিনি রাজশাহীতে ফেরার পর প্রতিবেদনের বিস্তারিত তুলে ধরা হবে বলে জানান আবদুর রশীদ।

গত ২৩ মার্চ গোদাগাড়ীর নিমঘটু গ্রামের সাঁওতাল কৃষক অভিনাথ মারান্ডি (৩৭) ও তার চাচাতো ভাই রবি মারান্ডি (২৭) বিষপান করেন। এতে অভিনাথ সেদিনই মারা যান। রবি মারা যান ২৫ মার্চ।

পরিবারের দাবি, নলকূপের অপারেটর ও ওয়ার্ড কৃষক লীগের সভাপতি সাখাওয়াত এই দুই কৃষকের বোরো ধানের জমিতে পানি না দিয়ে হয়রানি করছিলেন। পানি না পেলে তাঁরা বিষপানের হুমকি দিয়েছিলেন। অপারেটর সাখাওয়াত হোসেনও তাঁদের বিষ পান করতেই বলেছিলেন। এরপর তাঁরা দুজনে গভীর নলকূপের সামনেই বিষপান করেন। দুই কৃষক বিষপানের পর রাতে তাঁদের জমিতে পানি দিয়েছিলেন সাখাওয়াত।

২ এপ্রিল দিবাগত রাতে পুলিশ সাখাওয়াতকে গ্রেপ্তার করে। পরদিন বিএমডিএ সাখাওয়াতকে চাকরিচ্যুত করে। এদিন সাখাওয়াতকে আদালতে হাজির করে পুলিশ তিন দিনের রিমান্ডের আবেদন করে। আদালত সাখাওয়াতকে কারাগারে পাঠালেও সেদিন রিমান্ড আবেদনের শুনানি হয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন