বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে ছাত্রীরা সিরাজুন্নেসা হলের প্রাধ্যক্ষ ও সহকারী প্রাধ্যক্ষদের কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেন আন্দোলনরত ছাত্রীরা। সিরাজুন্নেসা হলের প্রাধ্যক্ষের কক্ষ (কক্ষ নম্বর ১০৭) ও সহকারী প্রাধ্যক্ষদের কক্ষে (কক্ষ নম্বর ১০৮) দরজায় বিভিন্ন স্লোগানসংবলিত পোস্টারও সাঁটিয়ে দেন ছাত্রীরা।

ছাত্রীদের আবার আন্দোলনে যাওয়ার প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আলমগীর কবির সন্ধ্যা পৌনে ছয়টার দিকে বলেন, ‘উপাচার্য স্যার যেখানে ছাত্রীদের সব সমস্যা সমাধানের জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন, এরপর আর কোনো কথা থাকতে পারে না। আমরা ছাত্রীদের হলে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ জানাব।’

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টা থেকে সিরাজুন্নেসা হলের কয়েক শ ছাত্রী প্রাধ্যক্ষ জাফরিন আহমেদের বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ তুলে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন। পরে উপাচার্য ছাত্রীদের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দিলে রাত আড়াইটার দিকে বিক্ষোভ স্থগিত করে তাঁরা হলে ফেরেন। গতকাল দুপুরে আন্দোলনরত ছাত্রীদের একটি প্রতিনিধিদল উপাচার্যের সঙ্গে বৈঠক করে।

বৈঠকে ছাত্রীরা তিন দফা দাবি তুলে ধরেন। বৈঠক শেষে বেলা একটার দিকে উপাচার্য কার্যালয় থেকে বের হয়ে প্রতিনিধিদলের সদস্যরা বৈঠক ফলপ্রসূ হয়নি দাবি করে আবার অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেন। বিকেল চারটার দিকে ছাত্রীরা সংবাদ সম্মেলন করে তাঁদের দাবি মানতে আজ সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত সময় বেঁধে দেন।

এদিকে গতকাল বিকেলে ছাত্রীদের চলমান আন্দোলনের মধ্যে যোবাইদা কনক খানকে হলের ভারপ্রাপ্ত প্রাধ্যক্ষের দায়িত্ব দেওয়া হয়। আন্দোলনের বিষয়ে উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদ গতকাল বলেন, প্রাধ্যক্ষ জাফরিন আহমেদ অসুস্থতার কারণে ছুটিতে থাকায় হলে ভারপ্রাপ্ত প্রাধ্যক্ষ হিসেবে আরেকজনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর ছাত্রীদের সঙ্গে আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে। তাঁদের সমস্যাগুলো সমাধান করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন