বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে উত্তরের এ জনপদে হিমেল বাতাস বাড়তে শুরু করে। এতে রাতভর কনকনে শীত অনুভূত হয়। রাত গভীর হওয়ার সঙ্গে বাড়তে থাকে কুয়াশার পরিমাণ। গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির মতো ঝড়তে থাকা কুয়াশা আজ বেলা ১১টা পর্যন্ত স্থায়ী ছিল।

বেলা ১১টার পর সূর্য হালকা উঁকি দিলেও রোদ তীব্রতা ছড়াতে পারেনি। সকাল পর্যন্ত কনকনে ঠান্ডা অনুভূত হওয়ায় খেটে খাওয়া মানুষেরা বিপাকে পড়েছেন। হিমেল বাতাসে কাবু হয়ে অনেকেই খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন।

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের উচ্চ পর্যবেক্ষক জীতেন্দ্র নাথ রায় প্রথম আলোকে বলেন, কয়েক দিন বিরতির পর আবারও তেঁতুলিয়ায় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে শুরু করেছে। সম্প্রতি আকাশে মেঘ জমে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হওয়ায় তাপমাত্রা কিছুটা বেড়েছিল। এখন তেঁতুলিয়ার আকাশে মেঘ নেই বললেই চলে। সেই সঙ্গে উত্তরের ভারী শীতল বাতাস তেঁতুলিয়ায় সরাসরি প্রবেশ করে তাপমাত্রা কিছুটা কমে গেছে। এতে শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে। এ ছাড়া আকাশের উপরিভাগে ঘন কুয়াশা ও জলীয় বাষ্প থাকায় সূর্যের তীব্রতা ভূপৃষ্ঠে আসতে না পারায় দিনেও বেশি শীত অনুভূত হচ্ছে। আগামী কয়েক দিন তেঁতুলিয়ার এমন আবহাওয়া ‍স্থিতিশীল থাকতে পারে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন