বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনে অংশ নেওয়া বক্তারা বলেন, বর্ষায় নৌকা আর হেমন্তে দিরাই উপজেলা থেকে হেটে বা ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেলে শাল্লায় যাতায়াত করতে হয় লোকজনকে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়ে মানুষ। এলাকার বর্তমান সাংসদ জয়া সেনগুপ্ত এই সড়ক নির্মাণের বিষয়ে একাধিকবার জাতীয় সংসদে কথা বলেছেন। সম্প্রতি এই সড়ক নির্মাণের জন্য আরেকটি প্রকল্প নিলেও সেটি এখনো অনুমোদন হয়নি। এই প্রকল্প দ্রুত অনুমোদন ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে দ্রুত দিরাই-শাল্লা সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপন করতে হবে।

মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন এলাকার প্রবীণ সমাজকর্মী রবীন্দ্র কুমার দাস, শাল্লা উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি দুলদুল চৌধুরী, সমাজকর্মী বুকুল আহমেদ তালুকদার, শিক্ষক সুব্রত কুমার দাস, স্থানীয় বাসিন্দা আবদুল মান্নান, বাদল চন্দ্র দাস, ফনি ভূষণ সরকার, অজয় তালুকদার, সাইফুর রহমান, তারেক হাসান প্রমুখ।

দিরাই-শাল্লা সড়ক নির্মাণের একটি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে দেওয়া আছে। মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ যাচাই-বাছাই কমিটি প্রকল্পের জন্য ৫৫১ কোটি টাকা প্রাক্কলন নির্ধারণ করে।
মো. জহিরুল ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী, সওজ, সুনামগঞ্জ কার্যালয়

এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর সুনামগঞ্জ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জহিরুল ইসলাম বলেছেন, দিরাই-শাল্লা সড়ক নির্মাণের একটি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে দেওয়া আছে। মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ যাচাই-বাছাই কমিটি প্রকল্পের জন্য ৫৫১ কোটি টাকা প্রাক্কলন নির্ধারণ করে। পরে নকশা শাখা থেকে সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রকল্প ব্যয় ৮৫৭ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়।

নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জহিরুল ইসলাম আরও বলেন, প্রকল্প ব্যয় অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পাওয়ায় ১৭ মে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. জাকির হোসেনের নেতৃত্বে একটি দল এই প্রকল্প এলাকা পরির্দশন করে গেছে। তাদের প্রতিবেদন দেওয়ার পরই পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন