পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কয়েক বছর ধরে স্থানীয় দুই বাসিন্দা আইনজীবী লিপসন ও আইনজীবী মারুফের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এ জন্য বেশ কিছুদিন ধরে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছিল। গতকাল রাত ১০টার দিকে লিপসন পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোঁটা নিয়ে মারুফের চাচা শওকত আলীর ওপর হামলা চালিয়ে তাঁকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেন। পরে তাঁকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মধ্যরাতে তাঁর মৃত্যু হয়। হামলায় আহত বাবুল, মারুফ, মাছুম আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম বলেন, পূর্বশত্রুতার জের ধরে দুই আইনজীবীসহ তাঁদের লোকজন একে অপরের ওপর হামলা চালিয়েছেন।

মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা প্রথম আলোকে বলেন, দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি বিরোধের জেরে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। নিহত ব্যক্তির লাশ কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি। কাউকে আটকও করা হয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন