বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চলতি বছরের ৩ এপ্রিল নগরের কোতোয়ালি থানার নন্দনকানন এলাকার একটি বাসার জানালার গ্রিল কেটে, ১৩ মে সিরাজদৌলা রোড এলাকার একটি বাসায় এবং ১৩ মার্চ রহমতগঞ্জ এলাকার একটি বাসার জানালার গ্রিল কেটে মালামাল চুরি করে চোরের দল। এই তিন ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়। ক্লোজড সার্কিট (সিসি) ক্যামেরায় চুরির ঘটনার ভিডিও ফুটেজ দেখে পুলিশ চোরের দলকে খুঁজতে থাকে। গত বৃহস্পতিবার দুজনকে রিকশা নিয়ে ঘুরতে দেখে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা ওই তিন ঘটনায় চুরিতে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন।

৮ বছরে ৭০০ চুরি

গ্রেপ্তার শরীফ নগরের চকবাজার ও খুলশী থানায় চুরির ঘটনার মামলায় ইতিপূর্বে পাঁচবার, আবদুল জলিল চকবাজার থানার মামলায় দুবার গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে গিয়েছিলেন। জামিনে বেরিয়ে এসে আবারও জড়িয়ে পড়েন চুরিতে। এ পর্যন্ত আট বছরে তাঁরা প্রায় ৭০০ চুরি করেছেন।

যেভাবে চুরি করেন

গ্রেপ্তার দুই চোর পুলিশকে জানান, রিকশাচালক সেজে দিনে কিংবা রাতে তাঁরা নগরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বেড়ান। যেসব বাড়িতে লোকজন থাকে না কিংবা সন্ধ্যার পর বাতি জ্বলে না, সেসব বাসাকে লক্ষ্য করে চুরি করেন। একজন ঘরে ঢোকেন, আরেকজন রিকশা নিয়ে বাইরে পাহারা দেন। একসময় তাঁরা সিএনজিচালিত অটোরিকশা নিয়ে ঘুরে বেড়াতেন। এখন রিকশা নিয়ে ঘোরেন।

default-image

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নেজাম উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, নগরের হাজারী লেনে সোনা ব্যবসায়ী প্রণব ধর চোরের দলকে আগাম টাকা দিয়ে রাখেন। এককথায় তিনি চোরের কাছে বিনিয়োগ করেন। চুরি শেষে চোরেরা মালামালগুলো তাঁর কাছে বিক্রি করেন। ৭০ হাজার টাকার সোনা ৩৫ হাজার টাকায় কিনে নেন। পরে বাজারে বেশি দামে বিক্রি করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন