বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ডায়রিয়ার প্রকোপ

বছরের প্রথম দিনই বরিশাল বিভাগে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। ২৬ এপ্রিলের মধ্যে আক্রান্ত হয় ৪০ হাজারের বেশি মানুষ। স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, এর মধ্যে ২০ থেকে ২৬ এপ্রিল এক সপ্তাহে আক্রান্ত হয়েছিল ১০ হাজার ৭ জন। এপ্রিল মাসে সরকারি হিসাবে মারা গেছেন ১১ জন। তবে বেসরকারি হিসাবে মৃত্যুর সংখ্যা ৩৩ জনের বেশি।

ভয়ংকর জুলাই

বিদায়ী জুলাইয়ে ভয়ংকর সময় পার করে বরিশাল বিভাগের কোটি মানুষ। করোনা সংক্রমণ আর মৃত্যু-দুটোই চূড়ায় পৌঁছায় এ মাসে। নমুনা বিবেচনায় ৩৯ শতাংশ রোগী শনাক্ত হয় এই মাসে। আর মারা যান ৪৪ দশমিক ১৩ শতাংশ রোগী।

স্বাস্থ্য বিভাগের হিসাবে, জুলাইয়ে বরিশাল বিভাগে শনাক্ত হয় ১৩ হাজার ১৪৮ জন। এই মাসে করোনা পজিটিভ ও উপসর্গ নিয়ে প্রাণহানি হয় ৪০১ জনের। অপরদিকে আগস্টে শনাক্ত হয় ১০ হাজার ৬১১ রোগী। আর পজিটিভ রোগী মারা যায় ১৮৫ জন।

স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, বরিশাল বিভাগে করোনার প্রথম ঢেউ শুরু হয় ২০২০ সালের ৯ এপ্রিল। ওই বছরের জুনে বিভাগে এক দিনে সর্বোচ্চ ২৪৩ জন শনাক্ত হয়। দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয় চলতি বছরের মে মাসে। গত ৭ জুলাই এক দিনে করোনা শনাক্ত হয় সর্বোচ্চ ৬২২ জনের। এরপর ১১ জুলাই এ সংখ্যা হয় ৭১০ ও ১৩ জুলাই ৮৭৯। আর ১৯ জুলাই ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ দিন। এদিন সংক্রমণের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে রেকর্ড ৮৯১ জন শনাক্ত হয়।

৩১ জুলাই পর্যন্ত বিভাগে করোনায় মারা গেছেন ৪৬৯ জন। তাঁদের মধ্যে দ্বিতীয় ঢেউ শুরুর পর মে থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২০৭ জনের, যা মোট মৃত্যুর ৪৪ দশমিক ১৩ শতাংশ। আর শুধু জুলাইয়ে মৃত্যু হয়েছে ১৫৮ জনের। সেপ্টেম্বর থেকে করোনা শনাক্ত ও মৃত্যুর সূচক নামতে থাকে।

ইউএনওর বাসভবনে হামলা

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই বরিশালে আরেক ঘটনা দেশজুড়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু ছিল। ১৮ আগস্ট রাতে বরিশাল সদর উপজেলার ইউএনও অফিস কম্পাউন্ডে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর শুভেচ্ছা ব্যানার নামাতে গিয়ে সিটি করপোরেশনের কর্মী ও পরে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এতে ইউএনওর বাসভবনে হামলার সময় আনসার সদস্যদের গুলিতে আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী গুলিবিদ্ধ হন। এ ঘটনায় ইউএনও ও কোতোয়ালি থানার ওসির দুই নগর সংস্থার মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহকে প্রধান আসামি করা হয়। ঘটনার তিন দিন পর এ ঘটনায় প্রশাসনের সঙ্গে মেয়রসহ আওয়ামী লীগের নেতাদের সমঝোতা বৈঠকে বিষয়টি নিরসন হয়।

কাঙ্ক্ষিত পায়রা সেতু উদ্বোধন

দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের বহুল প্রতীক্ষিত পায়রা সেতু উদ্বোধন হয় ২৪ অক্টোবর। এদিন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে স্বপ্নের সেতুটি উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পরই সেতুর দুই পাড়ে হাজারো মানুষ উল্লাসে ফেটে পড়েন। এর আগে জনতা বাদ্যযন্ত্রসহ উপস্থিত হয় সেতুতে। সেখানে দল বেঁধে আনন্দ-উল্লাসে মেতে ওঠে তারা। কেউবা মুহূর্তটি সেলফিতে ধারণ করে, কেউবা আনন্দে হেঁটেই সেতু পাড়ি দেন। বিভিন্ন ধরনের যানবাহন ছুটে চলে গন্তব্যে।

অভিযান-১০ ট্র্যাজেডি

বছরের শেষ মাসটি ছিল চরম বেদনাদায়ক। গত ২৩ ডিসেম্বর গভীররাতে ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ঢাকা থেকে বরগুনাগামী লঞ্চটির ৩৮ যাত্রীর প্রাণহানির খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। হাসপাতালে ভর্তি আছেন দগ্ধ ৮৫ জন। নিখোঁজ রয়েছেন ৫১ জন। এ দুর্ঘটনায় স্বজনহারাদের আহাজারি, দগ্ধদের আর্তনাদে ভারী হয়ে আছে দক্ষিণের জনপদ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন