বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওই ছাত্রীর এক স্বজন জানান, সে ও তার ছোট বোন প্রতিদিন সন্ধ্যায় নদী পার হয়ে গ্রামের এক শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়তে যেত। গতকাল সন্ধ্যায় তার ছোট বোন আগে পড়তে যায়। কিছুক্ষণ পর সে পড়তে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়।

রাত নয়টার দিকে প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফিরে ছোট বোন তার মাকে জানায়, বড় বোন পড়তে যায়নি। এরপর থেকে পরিবারের লোকজন তাকে খুঁজতে শুরু করেন। গভীর রাত পর্যন্ত আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় খোঁজাখুঁজি করেও তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।

এদিকে আজ সকালে স্থানীয় লোকজন নদীর পাড়ের একটি বাগানে ওই ছাত্রীর লাশ পড়ে থাকতে দেখে বাড়ির লোকজনকে খবর দেন। পরে খবর দেওয়া হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে।

দেবহাটা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ফরিদ আহমেদ বলেন, ওই স্কুলছাত্রীর পরনের জামা ছেঁড়া ছিল। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষতচিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন