সকাল ৯টায় মাওলানা আরিফ চৌধুরী সাদ্রা গ্রামের মাদ্রাসা মাঠে ঈদ জামাতে ইমামতি করেন। এ সময় তিনি বলেন, সারা দেশের মানুষ ক্রমে তাঁদের সঙ্গে মিল রেখে একসঙ্গে ঈদ ও ধর্মীয় উৎসব উদ্‌যাপন করবেন।

চট্টগ্রাম: দক্ষিণ চট্টগ্রামের আনোয়ারা ও বাঁশখালী উপজেলার কয়েকটি গ্রামে আজ ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন করছেন সাতকানিয়া উপজেলার মির্জাখীল দরবার শরিফের অনুসারীরা। এভাবে ২০০ বছর ধরে হানাফি মাজহাবের অনুসরণে হজের পরের দিন ঈদুল আজহা পালন করেন তাঁরা।

দরবারের অনুসারীরা জানিয়েছেন, মির্জাখীল দরবার শরিফের খানকাহ মাঠে সকাল সাড়ে ৯টায় ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। হজরত ইমামুল আরেফীন ড. মৌলানা মুহাম্মদ মকছুদুর রহমান এতে ইমামতি করেন। এ ছাড়া সকালে আনোয়ারা উপজেলার বরুমচড়া, তৈলারদ্বীপ, বারখাইন, খাসখামা, কাটাখালী ও রায়পুর এবং বাঁশখালী উপজেলার কালিপুর, চাম্বল, ডোংরা, শেখেরখীল, ছনুয়া, পুইছড়ি গ্রামে পৃথক ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসব গ্রামে ঈদের জামাত শেষে পশু কোরবানি দেওয়া হয়।

বরগুনা: সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে বরগুনার বেতাগী উপজেলার ১০টি গ্রামে ঈদুল আজহা উদযাপিত হচ্ছে। আজ সকাল ৮টায় উপজেলার বকুলতলী গ্রামে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন হাফেজ মো. রমজান আলী।

default-image

উপজেলার লক্ষ্মীপুরা, খোন্তাকাটা, ভাগোলেরপাড়, জলিশা, আনার জলিশা, বকুলতলী, চেয়ারম্যান বাড়ি, বটতলা, মন্নানের হাট , গ্রেদ লক্ষ্মীপুরা গ্রামের চিশতিয়া কাদেরীয়া সম্প্রদায়ের কয়েক হাজার অনুসারী আজ ঈদ জামাতে অংশ নেন।

খোন্তাকাটা গ্রামের বাসিন্দা আলী আহম্মদ আকন বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন করে আসছি। তাই এখনো সেই নিয়মই পালন করছি।’

বেতাগী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাকসুদুর রহমান ফোরকান বলেন, সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দীর্ঘদিন ধরেই উপজেলার কয়েকটি গ্রামের মানুষ এভাবে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা উদযাপন করেন।

ধর্মপাশা: সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার ১৫টি গ্রামে আজ ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন করা হয়েছে। গ্রামগুলো হলো রাধানগর, ধর্মপাশা উত্তরপাড়া, দুধবহর, বাদশাগঞ্জ, সৈয়দপুর, কান্দাপাড়া, দশধরী, রাজনগর, ফাতেমা নগর, নলগড়া, বাহুটিয়াকান্দা, মেউহারী , মহদীপুর, গাছতলা ও জামালপুর।

এসব গ্রামের শরীয়তপুর জেলার নুড়িয়া উপজেলার সুরেশ্বরী দরবার শরিফের ভক্তরাও আজ ঈদ উদ্‌যাপন করছেন। সকাল ৯টায় উপজেলার উত্তরপাড়া ও দশধরী গ্রামে সুরেশ্বরী দরবার শরিফের স্থানীয় খানকা প্রাঙ্গণে পৃথকভাবে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

ধর্মপাশা উত্তরপাড়া খানকা শরিফ প্রাঙ্গণে ঈদের নামাজ পড়ান ওই খানকার খতিব মাওলানা রিফাত নূরী আল মুজাদ্দেদী। দশধরী গ্রামের খানকা শরিফ প্রাঙ্গণে ঈদের নামাজ পড়ান ওই খানকার খতিব পলাশ মিয়া।

ওই দুজন খতিব বলেন, ১৫ বছর ধরে এ উপজেলায় সুরেশ্বরী দরবার শরিফের ভক্তরা এভাবে ঈদ উদযাপন করে আসছেন।

ফেনী: ফেনীতে তিনটি স্থানে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন করা হচ্ছে। এলাকাগুলো হলো ফেনী সদর উপজেলার ফরহাদ নগর ইউনিয়নের পূর্ব সুলতানপুর ৭ নম্বর ওয়ার্ডের পৃথক দুটি পাড়ায় ও পরশুরাম পৌরসভার কোলাপাড়া ছয়ঘরিয়ায়।

ফেনী সদর উপজেলার ফরহাদ নগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন বলেন, তাঁর ইউনিয়নের পূর্ব সুলতানপুরের পৃথক দুটি পাড়ায় ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি অংশ পূর্ব সুলতানপুর শাহ আমানিয়া জাহাগিরিয়া দরবার শরিফে মাওলানা মোহাম্মদ গোলাম নবীর নেতৃত্বে ঈদের নামাজ আদায় করেন। একই গ্রামের অপর অংশে পূর্ব সুলতানপুর রশিদিয়া দরবার শরিফের মরহুম মাওলানা গোলাম কিবরিয়া পীর মিয়ার ছেলে মুহাম্মদ সুলতান মাহমুদ ঈদ জামাতে ইমামতি করেন।

পরশুরাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, পরশুরাম পৌরসভার কোলাপাড়া ছয়ঘরিয়া এলাকায় সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর মীর হোসেনের নেতৃত্বে আজ ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন