রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরিঘাট থেকে প্রায় চার কিলোমিটার লম্বা যানবাহনের লাইন। টানা তিন দিনের সরকারি ছুটি পাওয়ায় এসব মানুষ রাজধানী ছেড়েছিল। আজ সোমবার দুপুরে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের কাছ থেকে তোলা
রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরিঘাট থেকে প্রায় চার কিলোমিটার লম্বা যানবাহনের লাইন। টানা তিন দিনের সরকারি ছুটি পাওয়ায় এসব মানুষ রাজধানী ছেড়েছিল। আজ সোমবার দুপুরে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের কাছ থেকে তোলাপ্রথম আলো

দুই দিন ধরে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশদ্বার রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় বিভিন্ন যানবাহনের চাপ অব্যাহত রয়েছে। ফেরিঘাটে পৌঁছানোর পর ১২ ঘণ্টা আগে কোনো যাত্রীবাহী পরিবহন নদী পাড়ি দিতে ফেরিতে উঠতে পারছে না। মহাসড়কেই ঘণ্টার পর ঘণ্টা থেকে শত শত গাড়ির যাত্রী নানা দুর্ভোগের সম্মুখীন হচ্ছে। টানা তিন দিনের সরকারি ছুটি পাওয়ায় এসব মানুষ রাজধানী ছেড়েছিল।

আজ সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত দৌলতদিয়ায় অবস্থান করে দেখা যায়, ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ফেরিঘাট থেকে গোয়ালন্দমুখী দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার লম্বা যানবাহনের লাইন। সড়ক বিভাজকের পশ্চিম পাশের দুই লাইনে যাত্রীবাহী বাস, পণ্যবাহী ট্রাকসহ অন্যান্য গাড়ি দাঁড়িয়ে রয়েছে। আটকে থাকা অধিকাংশ গাড়ি গতকাল রোববার রাতে আসা। এর মধ্যে অনেক যাত্রীবাহী কোচ ১২ ঘণ্টা পরও ফেরিতে উঠতে পারেনি।

খুলনা থেকে আসা হানিফ পরিবহনের বাসের চালক মো. রুবেল বলেন, রোববার রাতে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রী বোঝাই করে রওনা করি। রাত দেড়টার দিকে দৌলতদিয়া ফেরিঘাট থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূর গোয়ালন্দ ফিডমিলের কাছে আটকা পড়ি। ১২ ঘণ্টা পার হলেও এখনো ঘাট থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে আটকা আছি। অসংখ্য গাড়ি ১২-১৩ ঘণ্টা ধরে নদী পাড়ি দিতে ফেরিতে ওঠার অপেক্ষা করছে।

default-image

যশোর থেকে আসা পণ্যবাহী গাড়ির চালক মামুন মিয়া বলেন, রোববার দুপুরের দিকে দৌলতদিয়া ঘাটের অদূরে মহাসড়কে লম্বা লাইনে আটকা পড়েন। ২৪ ঘণ্টা পার হলেও এখন পর্যন্ত তাঁর ফেরিতে ওঠার সুযোগ হয়নি। দীর্ঘ যানজটের কারণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আগে যাত্রীবাহী পরিবহন ফেরিতে ওঠার সুযোগ করে দিচ্ছে। ফলে পণ্যবাহী বা সাধারণ গাড়ি সুযোগ কম পাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

নদীর বিপরীত পাশ মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া প্রান্তে আটকে থাকা অনেকে ঘাটে দীর্ঘক্ষণ আটকে থাকার কারণে দুর্ভোগে পড়েন। কুষ্টিয়া থেকে মানিকগঞ্জের গড়পাড়ায় বার্ষিক ওরস শেষে রোববার রাতে বাড়ির উদ্দেশে রওনা করেন কৃষক আবদুর রহিমের পরিবারসহ এলাকার কয়েকজন। সঙ্গে তিনটি গবাদিপশু (গরু) থাকায় সবাই মিলে ট্রাক ভাড়া করে রওনা হন। পাটুরিয়ায় যানজটের কারণে রাতভর আটকে থাকার পর ভোরে নদী পাড়ি দিয়ে দৌলতদিয়ায় পৌঁছান। সরাসরি মহাসড়ক দিয়ে আসতে না পারায় দীর্ঘপথ ঘুরে তাঁদের আসতে হয়েছে। এখন ঘাটে পরিবারের শিশু-নারীসহ বয়স্ক মানুষ নিয়ে আটকে থাকায় সবাইকে দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে।

default-image

এদিকে দৌলতদিয়া ঘাটে গাড়ির চাপ কমাতে গোয়ালন্দের পদ্মার মোড় এলাকায় থানা-পুলিশ বাড়তি দায়িত্ব পালন করছে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসা ছোট বা ব্যক্তিগত সব ধরনের গাড়িকে সরাসরি দৌলতদিয়ায় যেতে না দিয়ে পদ্মার মোড় দিয়ে ঘুরিয়ে গোয়ালন্দ বাজার হয়ে অতিরিক্ত আরও প্রায় ৮ কিলোমিটার পথ ঘুরে তবেই ফেরিঘাটে আসতে হচ্ছে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ তায়াবীর বলেন, রাজধানীর দিকে ছুটতে থাকা গাড়ির চাপ দৌলতদিয়ায় পড়েছে। ফরিদপুরের আটরশি ও চন্দ্রপাড়ার ওরস শেষে অতিরিক্ত গাড়ির চাপ সামাল দিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে। ঘাটে চাপ কমাতে রোববার বিকেল থেকে ছোট, ব্যক্তিগত গাড়ি পদ্মার মোড় থেকে ঘুরিয়ে গোয়ালন্দ বাজার দিয়ে চর দৌলতদিয়া হাট হয়ে ঘাটে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এসব গাড়ি মহাসড়ক দিয়ে ঘাটে গেলে নদী পাড়ি দিয়ে আসা গাড়ি ফেরি থেকে নামতে না পেরে আরও বেশি ঝক্কি-ঝামেলা পোহাতে হতো।

default-image

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ বলেন, ছুটির পাশাপাশি ওরস থেকে ফেরত গাড়ির কারণে দুই দিন ধরে ঘাটে গাড়ির চাপ পড়ছে। মানুষের দুর্ভোগের কথা মাথায় রেখে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীবাহী বাস ও ব্যক্তিগত গাড়ি আগে ফেরিতে ওঠার সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে। যে কারণে সাধারণ বা পণ্যবাহী গাড়ির চাপ অব্যাহত রয়েছে। তবে এসব গাড়ি পারাপারে ছোট-বড় মিলে ১৬টি ফেরি চালু রয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন