বিজ্ঞাপন

দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরিতে ওঠার আগমুহূর্তে ঘাট ইজারাদারের নিয়োজিত লোকজনের কাছ থেকে ফেরি পারাপারের টিকিট সংগ্রহ করে ফেরিতে ওঠার সুযোগ পাচ্ছেন। নদী পারাপারের টিকিটমূল্য ২৫ টাকা হলেও অধিকাংশ যাত্রীর কাছ থেকে খুচরা টাকা না থাকার অজুহাতে ৩০ টাকা করে আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। ঈদকে কেন্দ্র করে এভাবে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন ঘাট ইজারাদারের লোকজন।

রবিউল হাসান নামের ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী ঈদের ছুটি কাটিয়ে গোয়ালন্দের কাটাখালী থেকে আজ সকালে ঢাকার উদ্দেশে রওনা করেন। ফেরিঘাটে পৌঁছার পর ইজারাদারদের মনোনীত প্রতিনিধিদের বাধার মুখে পড়েন তিনি। তাঁর কাছ থেকে ফেরিতে নদী পারাপারের টিকিটের জন্য ৩০ টাকা আদায় করা হয়।

default-image

রবিউল হাসান বলেন, ‘ইজারাদারের লোকজন সরকারদলীয় স্থানীয় নেতাদের নাম ভাঙিয়ে প্রভাব বিস্তার করছেন। তাঁদের থেকে ফেরি পারাপারের টিকিট না নিয়ে ফেরিতে ওঠার সুযোগ নেই। বাধ্য হয়ে আমিও টিকিট নিই। ভাংতি না থাকায় ৫০ টাকার নোট দিলে তাঁরা ২০ টাকা ফেরত দেন। ৫ টাকা কম দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে বলেন, খুচরা ৫ টাকা নাই, তাই ২০ টাকা নিতে হবে। একপ্রকার বাধ্য হয়েই চলে আসতে হলো। এভাবে তাঁরা শত শত যাত্রীর কাছ থেকে কৌশলে অতিরিক্ত ৫ টাকা করে আদায় করছেন।’
স্কুলশিক্ষক জীবন চক্রবর্তী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘ঈদের আগে স্ত্রী ও সন্তানকে বাবার বাড়ি টাঙ্গাইল পাঠাতে ফেরিতে তুলে দিতে যাই। এ সময় আমাকেও ২ জনের জন্য ৫০ টাকার পরিবর্তে ৬০ টাকা দিতে হয়েছে। এভাবে যদি তাঁরা অতিরিক্ত ৫ টাকা করে আদায় করেন, তাহলে দিন শেষে কত টাকা হতে পারে একবার ভেবে দেখুন।’

বিআইডব্লিউটিসি ফেরি সার্ভিসের টিকিট বিক্রির দায়িত্ব পাওয়া এজেন্ট ঢাকার আরামবাগ, মতিঝিল এলাকার সুবহানা এন্টারপ্রাইজের নামে টিকিট সরবরাহকারী স্থানীয় আনোয়ার, জসিম, রাজ্জাকসহ কয়েকজন বলেন, ‘আমরা ২৫ টাকা রাখার চেষ্টা করি। অনেক সময় যাত্রীরা হুড়মুড় করে ফেরিতে ওঠার চেষ্টা করে। এ সময় কাছে খুচরা টাকা না থাকায় বাধ্য হয়ে ৩০ টাকা রাখা হয়। এ ছাড়া কেউ কেউ ঈদ বকশিশ হিসেবেও দেন।’

দৌলতদিয়া নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক আবদুল মোন্নাফ আলী বলেন, ‘এ ধরনের অভিযোগ কয়েকজনের কাছ থেকে পেয়েছি। এমনিতে মানুষ লকডাউনে কাজকর্ম না থাকায় অসহায় হয়ে আছে। নেহাত বিপদে পড়েই বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন তাঁরা। তারপর তাঁদের কাছ থেকে বাড়তি টাকা আদায় মেনে নেওয়া যায় না। ঘাটে বেশি করে অফিসার ও ফোর্স মোতায়েন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।’

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. ফিরোজ শেখ বলেন, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ছোট-বড় মিলে ১৬টি ফেরি চলছে। যাত্রী ও যানবাহন পারাপার নির্বিঘ্ন রাখতে সব কটি ফেরি চালু রয়েছে। ঈদ শেষে কর্মজীবী মানুষ কর্মস্থলে ফিরছেন। অনেকে এখনো ছুটি কাটাতে বিভিন্ন স্থানে ঘুরতে যাচ্ছেন। দুই দিকের আসা–যাওয়া মানুষের ভিড় ফেরিঘাটে রয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন