থানাহাজতে আটক থাকাকালে নয়ন বাবু প্রথম আলোকে বলেন, ঘটনার সঙ্গে তিনি জড়িত ছিলেন না। শত্রুতা করে তাঁকে মামলায় জড়ানো হয়েছে।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্রীকে একই গ্রামের রিমন রহমান (২২) নামের এক তরুণ বিয়ের প্রস্তাব দেন। কিন্তু বিয়েতে ওই ছাত্রী ও তাঁর পরিবার রাজি ছিল না। এতে রিমন ক্ষুব্ধ হয়ে গত বছরের ১৮ এপ্রিল ছাত্রীকে কৌশলে নিজ বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন। ধর্ষণের ঘটনাটি নয়নসহ তিন বন্ধু ঘরের জানালা দিয়ে মুঠোফোনের ক্যামেরায় ধারণ করেন। এ সময় ওই বাড়িতে আর কেউ ছিলেন না।

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, ধর্ষণ ও ধর্ষণের দৃশ্য ধারণ করার মামলায় আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। সে অনুযায়ী নয়ন বাবুকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন