বিজ্ঞাপন

এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সোহরাব মাদকদ্রব্য পানিতে ফেলে পালিয়ে যান। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে দুই ভাই সোহরাব হোসেন ও ফোরহাদ হোসেনের বিরুদ্ধে থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে। পরে ফোরহাদ হোসেনকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ২০ এপ্রিল আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। ঘটনার পর থেকে সোহরাব পলাতক ছিলেন। শুক্রবার সকালে বাড়িতে ফিরে আসার খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

এর আগে খুন ও মাদক বিক্রির অভিযোগে কয়েক দফা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ায় সোহরাব হোসেনকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। থানাহাজতে আটক সোহরাব হোসেন বলেন, পুলিশ তাঁকে মিথ্যা মাদক মামলায় গ্রেপ্তার করেছে। তিনি খুনসহ অন্যান্য মিথ্যা মামলায় আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। তিনি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। পুলিশ তাঁর বিরুদ্ধে সঠিক তদন্ত না করে মামলাগুলোর অভিযোগপত্র দাখিল করেছে।

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, সোহরাব হোসেন এলাকায় একজন চিহ্নিত মাদক কারবারি। তাঁকে মাদকসহ একাধিকবার গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া তাঁর বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলাসহ ৯টি মামলা রয়েছে। শুক্রবার বেলা তিনটার দিকে আদালতের মাধ্যমে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন