বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মোকছেদ জন্ম থেকে মানসিক প্রতিবন্ধী। কয়েক বছর ধরে তাঁকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। আজ সকালে শিকল খুলে দিলে মোকছেদ লাঠি দিয়ে বড় বোনের মাথায় আঘাত করেন। এতে বড় বোন আজমিরা খাতুন গুরুতর আহত হলে পরিবারের লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। সকাল ১০টার দিকে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আজমিরা বিয়ের পর থেকে স্বামীকে নিয়ে বাবার বাড়িতে থাকতেন বলে জানা গেছে।

নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ প্রথম আলোকে বলেন, মোকছেদের অস্বাভাবিক আচরণের কারণে তাঁকে শিকলে বেঁধে রেখেছিলেন পরিবারের সদস্যরা। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। মানসিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় মোকছেদ আলীকে এখনো আটক করা হয়নি। এদিকে পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো মামলা বা অভিযোগ করা হয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন