শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথের নরসিংহপুর ফেরিঘাটের অবস্থান শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলায়। আর চাঁদপুর প্রান্তে সদর উপজেলার হরিণায় আরেকটি ঘাট রয়েছে। এ নৌপথে দুটি ঘাট ব্যবহার করে চট্টগ্রাম বিভাগে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার পণ্য ও যাত্রীবাহী গাড়ি চলাচল করে থাকে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) কর্মকর্তাদের সূত্রে জানা যায়, নৌপথটিতে পণ্য ও যাত্রীবাহী গাড়ি পারাপারের জন্য সাতটি ফেরি চলাচল করে। এর মধ্যে গত সোমবার দুটি ফেরি বিকল হয়ে পড়ে। পরে তা মেরামত করতে ডকে পাঠানো হয়। মেরামত শেষ করে ওই দুই ফেরি আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে আবার চলাচল শুরু করেছে। নরসিংহপুর ফেরিঘাটে আজ গিয়ে দেখা যায়, ঘাট থেকে খায়েরপট্টি পর্যন্ত সড়কে ও টার্মিনালে সাত শতাধিক ট্রাক আটকে আছে। অনেকে পারাপারের জন্য দুই দিন ধরে বসে আছেন।

default-image

সাতক্ষীরার ভোমরা বন্দর থেকে পেঁয়াজ নিয়ে চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ যাবেন ট্রাকচালক আবদুল হক সিকদার। বুধবার দুপুরে নরসিংহপুর ঘাটে পৌঁছান তিনি। ট্রাকজট থাকায় ফেরিতে উঠতে পারছেন না। তিনি বলেন, ‘ঈদমুখী বাজার। দ্রুত মোকামে পৌঁছা দরকার। কিন্তু ঘাটে বসে আছি। আজ ফেরির সিরিয়াল পাব কি না, এর কোনো নিশ্চয়তা নেই। এভাবে ঘাটে বসে থাকলে ব্যবসায়ীদের ও আমাদের দুই পক্ষেরই লোকসান হবে।’

খুলনা থেকে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার নিয়ে কুমিল্লায় যাবেন ট্রাকচালক মোশারফ হোসেন। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথ ব্যবহার করে ঢাকা হয়ে যাওয়ার জন্য ট্রাক নিয়ে দৌলতদিয়া ঘাটে যান। ওই ঘাট থেকে ফেরিতে উঠতে না পেরে নরসিংহপুর ফেরিঘাটে আসেন। বুধবার দুপুর থেকে তিনি ফেরির অপেক্ষায় ঘাটে বসে আছেন। মোশারফ প্রথম আলোকে বলেন, ‘ঈদের আগে দু-তিনটি ট্রিপ মারার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু এখন যে ট্রাকজটে ঘাটে আটকা পড়েছি, তাতে এই মালামাল নামিয়ে দিয়ে ঈদের ছুটিতে বাড়ি যেতে পারব কি না, তারই নিশ্চয়তা নেই।’

জানতে চাইলে শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথের নরসিংহপুর ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক আবদুল মোমেন প্রথম আলোকে বলেন, ঈদে ঘরমুখী যাত্রীদের যাত্রা নিরাপদ ও দুর্ভোগমুক্ত রাখতে তিনটি নৌপথে পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার বন্ধ রয়েছে। তাই এ নৌপথের নরসিংহপুর ঘাটে ট্রাকের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ ছাড়া দুটি ফেরি তিন দিন বিকল ছিল, তাতে কিছুটা সমস্যা হয়েছে। ঘাটে আটকে পড়া ট্রাকগুলো পারাপার করতে কমপক্ষে দু-তিন দিন সময় লাগবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন