বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ফাহারুল ইসলাম গাবতলী উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের ছয়ঘড়িয়া গ্রামের লিটন মিঞার ছেলে। সে সোনারায় উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ছিল। এ ঘটনায় তাঁর বাবা লিটন মিয়া বাদী হয়ে কাহালু থানায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন।

পুলিশ ও নিহত ফাহারুলের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ফাহারুল পড়ালেখার পাশাপাশি অটোভ্যান চালাত। মঙ্গলবার সকালে বাড়ি থেকে অটোভ্যান নিয়ে বের হয় সে। এরপর আর বাড়ি ফেরেনি। আজ বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় লোকজন কাহালু উপজেলার ভ্যাপড়া ডি কে রাইস মিলের পেছনে খালের কালভার্টের নিচে লাশ ভাসতে দেখে থানায় খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

কাহালু থানার ওসি আমবার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ফাহারুল পড়ালেখার পাশাপাশি সংসারের দারিদ্র্য ঘোচাতে অটোভ্যান চালাত। তার শরীরে ছুরির অনেক জখম রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, যাত্রীবেশী দুর্বৃত্তরা ভ্যান ছিনতাইয়ের উদ্দেশে তাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে হত্যার পর লাশ কালভার্টের নিচে ফেলে রেখে পালিয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন