default-image

জাটকা রক্ষায় মেঘনার চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত ৬০ কিলোমিটার এলাকায় গত পয়লা মার্চ থেকে দুই মাসের জন্য সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করে সরকার। শুক্রবার রাত ১২টায় নিষেধাজ্ঞার ওই মেয়াদ শেষ হচ্ছে। শনিবার থেকে মেঘনায় আবার মাছ ধরা শুরু হচ্ছে। দীর্ঘদিন পর মাছ ধরার সুযোগে পাবেন বলে জেলেদের মনে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

জেলা মৎস্য অধিদপ্তর সূত্র জানায়, জাটকা সংরক্ষণ ও ইলিশ রক্ষায় গত পয়লা মার্চ থেকে শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) পর্যন্ত দুই মাস মেঘনার চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত ৬০ কিলোমিটার এলাকায় সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করে এক পরিপত্র জারি করে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। ইলিশ ও জাটকা ধরা, বেচাকেনা, পরিবহন, বাজারজাতকরণ ও সংরক্ষণও নিষিদ্ধ করা হয় ওই পরিপত্রে।

বিজ্ঞাপন

মতলব উত্তর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মনোয়ারা বেগম বলেন, মেঘনায় মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শুক্রবার রাত ১২টায় শেষ হচ্ছে। শনিবার থেকে মেঘনায় জেলেরা আবার মাছ ধরতে পারবেন। তবে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত জাটকা ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মনোয়ারা বেগম আরও বলেন, জাটকা রক্ষায় উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গত পয়লা মার্চ থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রতিদিন গড়ে দু-তিনটি করে অভিযান চালানো হয়। স্থানীয় মৎস্য কার্যালয়, নৌ ফাঁড়ির পুলিশ, কোস্টগার্ড, থানা-পুলিশ ও প্রশাসন এসব অভিযান চালায়। ওই অভিযানে সাড়ে ৩৫ লাখ মিটার কারেন্ট জাল ও ১০২ মণ জাটকা জব্দ করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে জেল-জরিমানা করা হয় আট জেলের। এ উপজেলায় কর্মহীন ৮ হাজার ৮৯৪ জেলের প্রত্যেককে গত ফেব্রুয়ারি থেকে প্রতি মাসে ৪০ কেজি করে খাদ্যসহায়তা (চাল) দেওয়া হয়। আগামী মে পর্যন্ত তাঁরা ওই সহায়তা পাবেন।

মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল এলাকার জেলে সুমন বর্মণ বলেন, আগামী শনিবার থেকে মেঘনায় আবার মাছ ধরতে পারবেন জেনে খুব স্বস্তি লাগছে। গত দুই মাস নদীতে মাছ ধরতে না পারায় পরিবার নিয়ে খুব কষ্টে ছিলেন। এখন ওই কষ্ট দূর হবে বলে আশা করছেন। আবার মাছ ধরার জন্য নৌকা ও জাল নিয়ে প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন