বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাতে নির্বাচনী প্রচারণা শেষে আলা উদ্দিন মোটরসাইকেলে করে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় কাদরা এলাকায় পৌঁছালে একদল দুর্বৃত্ত অতর্কিতে পথরোধ করে আলা উদ্দিনকে বেধড়ক মারধর করে। পরে আলা উদ্দিনের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাঁকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে পরে শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এদিকে রাত সাড়ে ১০টার দিকে আলা উদ্দিনের সমর্থকেরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে থেকে হামলার প্রতিবাদে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি সেনবাগ বাজারে পৌঁছালে পুলিশ ধাওয়া করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। ঘটনার পর থেকে পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড এলাকায় থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে।

সদস্য প্রার্থীর দুই সমর্থককে মারধরের অভিযোগ

এদিকে কাবিলপুর ইউপি নির্বাচনের সদস্য প্রার্থী নিজাম উদ্দিনের দুই সমর্থক কাজী নিজাম উদ্দিন ওরফে টিপু ও কাজী মিজানুর রহমানকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে ইউপির ১ নম্বর ওয়ার্ডের ইয়ারপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত ব্যক্তিদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে মারধরের ঘটনায় নিজাম উদ্দিন বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন। লিখিত অভিযোগে তিনি দাবি করছেন, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও ১ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান সদস্য মোহাম্মদ ওয়াসিমের নেতৃত্বে মারধরের ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

তবে এখন পর্যন্ত নিজাম উদ্দিন ও অভিযুক্ত মোহাম্মদ ওয়াসিমের বক্তব্য জানা যায়নি।

সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী প্রথম আলোকে বলেন, সেনবাগ পৌরসভার কাদরা এলাকায় ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আলা উদ্দিনের ওপর রাত সাড়ে নয়টার দিকে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়েছে। তবে এ ঘটনায় এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া কাবিলপুর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী নিজাম উদ্দিনের সমর্থকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় নিজাম উদ্দিন থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন