বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মিছবাহ্‌ উদ্দিন বলেন, গত বছর দল তাঁকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দিলেও দলীয় কোন্দলে তিনি হেরে গেছেন। এবারও আওয়ামী লীগ থেকে তাঁকে মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে তিনি আশাবাদী।

স্থানীয় লোকজন বলেন, ২০০৭ সালে পৌরসভা হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পর পাকুন্দিয়া পৌরসভায় এবার তৃতীয়বারের মতো নির্বাচন হতে যাচ্ছে। পাকুন্দিয়া পৌরসভার সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৬ সালের ৩১ অক্টোবর। এতে সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আক্তারুজ্জামান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে মেয়র নির্বাচিত হন। অন্যদিকে পৌরসভার প্রথম মেয়র মো. জালাল উদ্দিন। তাঁরা দুজন নির্বাচন করবেন বলে জানা গেছে।

বর্তমান মেয়র আক্তারুজ্জামান সর্বশেষ উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি ছিলেন। দলীয় মনোনয়ন না পেয়েও নির্বাচন করায় পাঁচ বছর আগে তাঁকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মেয়র নির্বাচিত হন। তিনি বলেন, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে এবারও তিনি মেয়র নির্বাচিত হবেন।

উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক জালাল উদ্দিন বলেন, গত বছর তিনি দলীয় মনোনয়ন নিয়ে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করেছেন। কিন্তু স্বতন্ত্র প্রার্থীর সঙ্গে ভোট ভাগাভাগির কারণে তিনি হেরে যান। এবার দল থেকে নির্বাচনের এখনো কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। তবে স্থানীয় নেতা-কর্মী ও ভোটাররা চাচ্ছেন, তিনি যেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে হলেও নির্বাচনের মাঠে থাকেন।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. সাখাওয়াৎ হোসেন বলেন, তফসিল অনুযায়ী নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ তারিখ ৯ অক্টোবর। এ ছাড়া মনোনয়নপত্র বাছাই ১১ অক্টোবর, প্রতীক বরাদ্দ ১৮ অক্টোবর। এ পৌরসভায় মোট ভোটারসংখ্যা ২৩ হাজার ১৩০।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন