বিজ্ঞাপন

এ সময় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিদ্দিকুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুম্পা সিকদার, ঝালকাঠি প্রেসক্লাবের সহসাধারণ সম্পাদক কে এম সবুজ, ক্রীড়া সাংবাদিক অলোক সাহা, রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি আল আমিন তালুকদার, ঢাকা পোস্টের ঝালকাঠি প্রতিনিধি মো. ইসমাইল তালুকদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শিক্ষক ও সাংবাদিক মিলন কান্তি দাস।

মায়ের প্রতি আমি যেটা করেছি, সেটাই হওয়া উচিত। এর ব্যতিক্রম হওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না।
জিয়াউল হাসান

জিয়াউল হাসানের মা শিক্ষক রেহেনা বেগম বলেন, ‘আমি প্রতিবছর বিদ্যালয়ের সমাপনী অনুষ্ঠানে ছাত্রছাত্রীদের বলি, সব সময় মায়ের দিকে খেয়াল রাখবে। হয়তো সেই উপদেশটা আল্লাহ তাআলা আমার ছেলেদের ওপর কবুল করেছেন।’

এ সময় জিয়াউল হাসান বলেন, ‘মায়ের প্রতি আমি যেটা করেছি, সেটাই হওয়া উচিত। এর ব্যতিক্রম হওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না।’ সংবর্ধনা দেওয়ায় তিনি উপজেলা প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

ইউএনও রুম্পা সিকদার বলেন, ‘একজন মায়ের প্রতি যে তাঁর ভালোবাসা, সেটা আমাকে সত্যিই অভিভূত করেছে। তাঁকে সংবর্ধনা দিয়ে আমরা তাঁর মায়ের প্রতি ভালোবাসায় শরিক হতে পেরে আনন্দিত।’

গত ১৭ এপ্রিল পিঠের সঙ্গে অক্সিজেন সিলিন্ডার বেঁধে করোনায় আক্রান্ত মাকে মোটরসাইকেলের পেছনে বসিয়ে ঝালকাঠির নলছিটি থেকে বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান জিয়াউল হাসান। ওই দিন সন্ধ্যায় জিয়াউল হাসান ও তাঁর মায়ের সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন