বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বরিশালে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বরিশাল বিভাগে নতুন করে আরও তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনা পজিটিভ হয়ে মৃত মানুষের সংখ্যা দাঁড়াল ২৪২।

রেহেনা পারভীনের অবস্থা কিছুটা উন্নতির দিকে। তবে মাঝেমধ্যে অক্সিজেন লেভেল ওঠানামা করছে বলে জানালেন জিয়াউল হাসান। আজ দুপুরে প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ‘শনিবার মা অনেক বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। অক্সিজেন লেভেল ৯৪-৯৩ নেমে যাচ্ছে। দুপুরে দেখলাম মায়ের অক্সিজেন শেষ হয়ে আসছে। সে জন্য ভাবলাম ঝুঁকিটা নেওয়া ঠিক হবে না।’

কৃষি ব্যাংকের ঝালকাঠি সদর শাখার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জিয়াউল বললেন, ‘মোটরসাইকেলে না এসে আমাদের আর কোনো উপায় ছিল না। আমাকে যে যেতেই হবে। দৌড়ে যেতে পারব না। চেষ্টা করেও কিছু করতে পারিনি। শেষে আমার গায়ের সঙ্গে গামছা দিয়ে অক্সিজেন সিলিন্ডার বেঁধে নিয়ে এসেছি। আমি বুঝতে পারছিলাম মায়ের কষ্ট হচ্ছে। আমি তখন মাকে একটি কথা বলেছিলাম, উপায় নেই মা। আমার মায়ের কষ্ট হচ্ছিল, তা আমি সহ্য করতে পারিনি।’

গতকাল বিকেলে হিরণ পয়েন্ট এলাকার তল্লাশিচৌকিতে দায়িত্বরত নগর পুলিশের ট্রাফিক সার্জেন্ট তৌহিদ টুটুল বলেন, লকডাউনে বের হওয়ার কারণ জানতে চেকপোস্টে যথানিয়মে তাঁদের থামানোর সংকেত দেওয়া হয়। তবে কাছাকাছি এলে দেখা যায় মোটরসাইকেলচালক তাঁর শরীরের সঙ্গে একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার গামছা দিয়ে বেঁধে নিয়েছেন। আর পেছনে তাঁকে ধরে যে নারী বসে আছেন, তাঁর মুখে অক্সিজেন মাস্ক। সিলিন্ডার থেকে অক্সিজেন মাস্ক দিয়ে ওই নারী যথারীতি অক্সিজেন গ্রহণ করছেন। বিষয়টি দেখার পর দ্রুত তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন