বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানায়, চোরাই মোটরসাইকেল পাচার, ক্রয়-বিক্রয়সহ বিভিন্ন অভিযোগে আশরাফুল ইসলামের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে নীলফামারী সদর থানা, সৈয়দপুর, ডিমলা ও লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ থানায় মামলা রয়েছে। এর মধ্যে নীলফামারী সদর থানার একটি মামলায় নীলফামারী আদালত থেকে আশরাফুল ইসলামের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

সেই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা অনুযায়ী গতকাল বিকেলে কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ আলী তাঁকে তাঁর বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করেন। এরপর অটোরিকশায় করে নিয়ে আসার সময় আসামির স্বজনেরা অটোরিকশার গতি রোধ করে পুলিশের ওপর হামলা চালান এবং আশরাফুলকে ছিনিয়ে নিয়ে যান।

আসামি আশরাফুল ইসলামের স্বজনদের হামলায় আহত চার পুলিশ সদস্যের মধ্যে সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) সেলিমকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আসামি আশরাফুল ইসলামের স্বজনদের হামলায় আহত চার পুলিশ সদস্যের মধ্যে সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) সেলিমকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আহত অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

এ বিষয়ে কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আরজু মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়া আসামি আশরাফুলকে পুনরায় গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। ওই আসামিকে ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় কালীগঞ্জ থানার এসআই মিস্টার আলী বাদী হয়ে ৩৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। পুলিশ আজ রোববার ভোরে ওই মামলায় ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়া আসামি আশরাফুলের চাচা আবদুল ওয়াহাব আলীসহ (৪৮) পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন