জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, ফরিদপুর করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১২ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে সাতজন করোনায় এবং বাকি পাঁচজন করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। করোনায় মারা যাওয়া সাতজনের মধ্যে তিনজনের বাড়ি ফরিদপুরে, দুইজনের মাগুরায়, একজনের রাজবাড়ী এবং একজনের গোপালগঞ্জে। করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে চারজনের বাড়ি ফরিদপুরে এবং একজনের বাড়ি রাজবাড়ীতে।

ফরিদপুরে করোনায় মারা যাওয়া তিনজন হলেন সদরপুরের সাতরশি গ্রামের মো. রুবেল মোল্লা (৩৫), সালথার ভাওয়াল গ্রামের পারভীন জামান (৬৫) এবং নগরকান্দা উপজেলার নগরকান্দা গ্রামের মো. আবদুর রউফ মুন্সী (৬০)।

করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ফরিদপুর জেলার চারজন হলেন ফরিদপুর শহরের গোয়ালচামট মহল্লার মুন্না (৪০), ফরিদপুর সদরের বেতবাড়িয়া গ্রামের হাসি বেগম (৪০) ও বলাদিয়া গ্রামের নূরু মোল্লা (৬০) এবং আলফাডাঙ্গা উপজেলার বদিউজ্জামান (৭০)।

ফরিদপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের চিকিৎসা কর্মকর্তা তানসিভ জুবায়ের বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় ফরিদপুরে ৩৫৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৬৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৪৭ দশমিক ১৯। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ৫২ দশমিক ৮১। ফরিদপুরে নতুন করে ভাঙ্গার ১৫, বোয়ালমারীর ৩, নগরকান্দার ১০, মধুখালীর ২, সদরপুরের ২, চরভদ্রাসনের ৪, সালথা ২ ও ফরিদপুর সদরের ১৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

ফরিদপুর করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের পরিচালক সাইফুর রহমান বলেন, হাসপাতালে আজ শনিবার সকাল পর্যন্ত ৩৭৫ জন চিকিৎসাধীন। এর মধ্যে করোনা রোগী ২৬৭ জন। করোনার উপসর্গ নিয়ে ভর্তি আছেন ১০৭ জন।