বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে মীমের বাবা মজনু মিয়া পুলিশকে বলেছেন, শাকিল পরিকল্পিতভাবে তাঁর মেয়েকে হত্যা করেছে। হত্যার পর তাঁর মেয়ে আত্মহত্যা করেছে, এই মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হয়। স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে তিনি মেয়ের মৃত্যু সংবাদ জানতে পারেন।

পরিবার ও এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার গাড়িদহ ইউনিয়নের রণবীরবালা গ্রামের কাফুড়া পূর্বপাড়ার মজনু মিয়ার মেয়ে মীম আক্তারের সঙ্গে কাঁফুড়া পশ্চিমপাড়ার রবিউলের ছেলে শাকিলের প্রায় এক বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তাঁদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে মনোমালিন্য চলছিল। স্থানীয় দুজন বাসিন্দা জানান, গতকাল মঙ্গলবার স্ত্রীর সঙ্গে শাকিলের ঝগড়া হতে শুনেছেন। তবে কী নিয়ে তাঁদের মধ্যে ঝগড়া, তা তাঁরা জানেন না।

মীমের খালু মো. সুলতান প্রথম আলোকে বলেন, শাকিল একটি ট্রাকের চালকের সহকারী। মীমের বিয়ের পর থেকে শাকিলের সঙ্গে তাঁর ঝগড়া হতো, তা তিনি জানতেন। এ নিয়ে সামাজিকভাবে সালিসও বসেছিল।

শেরপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোস্তাফিজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, শাকিলের শোয়ার ঘরের বিছানা থেকে তাঁর স্ত্রী মীম আক্তারের লাশ উদ্ধার করা হয়। মীমের গলায় কালো দাগ আছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। তিনি আরও বলেন, শাকিলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জিজ্ঞাসাবাদে মীমকে হত্যা করার কোনো তথ্য পাওয়া গেলে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন