default-image

রাজশাহীর বাগমারায় বন্যার পানিতে ডুবে ভাই-বোনের মৃত্যু হয়েছে। আজ রোববার দুপুরে পা পিছলে পানিতে পড়ে তাদের মৃত্যু হয়। তারা হলো যোগীপাড়া ইউনিয়নের ভাতঘরপাড়া গ্রামের ইউনুছ আলীর মেয়ে হিরা খাতুন (১৬) ও তার ভাই ইউরান হোসেন (৮)। হিরা স্থানীয় কছির উদ্দিন মেমোরিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী এবং ইউরান প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল। দুজনের কেউই সাঁতার জানত না।

এদিকে একই দিন সকালে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের উত্তর বালিগাঁও গ্রামে বাড়ির পেছনের পুকুরে পড়ে ডুবে মারা গেছে ইমরান আহমেদ নামের দেড় বছর বয়সের এক শিশু। সে ওই গ্রামের রহিম উদ্দীনের ছেলে।

বাগমারার যোগীপাড়া ইউনিয়নের ভাতঘরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও মৃত ভাই–বোনের স্বজনেরা জানান, বন্যার পানি বাড়ার কারণে ইউনিয়নের অনেক এলাকা ডুবে গেছে। এর মধ্যে ভাতঘরপাড়া একটি। এই গ্রামের সব রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। আজ বেলা আড়াইটার দিকে দুই ভাই–বোন হিরা খাতুন ও ইউরান হোসেন রাস্তার হাঁটুপানি দিয়ে হেঁটে গ্রামের এক পরিচিত ব্যক্তির বাড়িতে যাচ্ছিল। কিছু দূর যাওয়ার পর পা ফসকে রাস্তার নিচে পানিতে পড়ে যায় ইউরান হোসেন। তাকে উদ্ধার করতে পানিতে নেমে পড়ে হিরা খাতুন। দুজনেই পানিতে ডুবে মারা যায়। পরে ওই পথ দিয়ে যাওয়ার সময় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মাঠকর্মীরা টের পেয়ে তাদের মৃত অবস্থায় উদ্ধার করেন।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল প্রথম আলোকে বলেন, বন্যার পানিতে ডুবে দুই ভাই-বোনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মৃত্যুতে এলাকায় শোক বিরাজ করছে। ভাতঘরপাড়া গ্রামটি বিলবেষ্টিত। এই কারণে গ্রামটি প্লাবিত হয়।
বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আতাউর রহমান জানান, বিষয়টি তিনি শুনেছেন।

কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের উত্তর বালিগাঁও গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা জানান, আজ সকাল আটটায় পরিবারের সদস্যদের অজান্তে দেড় বছরে শিশু ইমরান বসতঘর থেকে বের হয়ে বাড়ির পেছনের পুকুরের পানিতে পড়ে যায়। দীর্ঘ সময় শিশুটিকে দেখতে না পেয়ে পরিবারের সদস্যরা খুঁজতে থাকেন। একপর্যায়ে পুকুরের পানিতে শিশুটির লাশ ভাসতে দেখেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন