এর আগে গত বুধবার আহ্বায়ক মজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা, খামখেয়ালিপনা ও অমানবিক আচরণের অভিযোগ এনে ওই কমিটির সাত সদস্য পদত্যাগ করেন।

নতুন করে পদত্যাগ করা চারজন হলেন উজিরপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন খান, সাংগঠনিক সম্পাদক এইচ এম আসাদুজ্জামান ওরফে বাদশা, উজিরপুর পৌর বিএনপির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মো. ইদ্রিছ বালী ও সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম খান। উপজেলা ও পৌর কমিটির পাশাপাশি তাঁরা দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ছিলেন।

তবে বিলকিস জাহান আজ শনিবার দুপুরে প্রথম আলোকে বলেন, ‘উজিরপুরের চার নেতা পদত্যাগ করেছেন বলে শুনেছি। তবে অফিসিয়ালি এখনো কোনো চিঠি পাইনি।’

বরিশাল-২ আসনটি বানারীপাড়া-উজিরপুর দুই উপজেলা নিয়ে গঠিত। স্থানীয় বিএনপির একাধিক সূত্র জানায়, সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে বিএনপির প্রার্থী এস সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু। এই দুই উপজেলায় বিএনটির নিয়ন্ত্রকও তিনি।

নতুন কমিটি গঠনের লক্ষ্যে সম্প্রতি এই দুই উপজেলার সব পর্যায়ের কমিটি ভেঙে দেন জেলা কমিটির আহ্বায়ক মজিবুর রহমান। এতে ক্ষুব্ধ হন এস সরফুদ্দিন আহমেদ ও তাঁর অনুসারীরা। মূলত, এ জন্যই দুই উপজেলার বিএনপি নেতারা জেলা কমিটি থেকে পদত্যাগ করছেন।

প্রসঙ্গত, গত নভেম্বরে কেন্দ্র থেকে বরিশাল মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়। গত ২২ জানুয়ারি বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বরিশাল মহানগর বিএনপির ৪২ ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির ৪৭ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন