বিজ্ঞাপন

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার আওনা ইউনিয়নের কাওয়ামারা ও কুলপাল এলাকায় যমুনা নদীর বিশাল চর জেগে উঠেছে। এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে আওনা ইউনিয়নের স্থল গ্রামের সাইফুল ইসলাম, নয়ন, আলতাব, ইকবাল, আনিছুর রহমান, হাফিজুর রহমান ও কাওয়ামারা গ্রামের হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে কাওয়ামারা ও কুলপাল এলাকার যমুনা নদীর জেগে ওঠা চর থেকে খননযন্ত্র বসিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। এসব বালু তাঁরা বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করছেন। পাশাপাশি মাটি তুলে ভিটেবাড়ি ভরাটের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন বলেন, যাঁরা বালু উত্তোলনের সঙ্গে জড়িত, তাঁরা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এ জন্য তাঁদের কেউ কিছু বলে না। নদীর চর থেকে প্রতি ট্রাক বালু বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা করে। প্রতিদিন ভেকু মেশিনের মাধ্যমে শতাধিক ট্রাকে বালু তুলে বিক্রি করা হচ্ছে। বালু উত্তোলন করায় ফসলি জমি নষ্ট হচ্ছে। যমুনা নদীর পূর্ব তীর বাঁধও হুমকির মুখে পড়ছে।

কুলপাল গ্রামের কৃষক রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘যমুনা নদীর জেগে ওঠা চরে আমরা ফসল আবাদ করেছি। সরকারদলীয় লোকজন জোরপূর্বক ড্রেজার বসাইয়ে বালু ও মাটি কাইটে নিয়ে যাচ্ছে। আমরা কী কইরে খামু। অভিযোগ দিয়েও কাজ হয় না।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে যমুনার তীর থেকে বালু উত্তোলনকারী আওনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য সাইফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘সরকার আমাদের ক্ষমতায়। নদী থেকে বালু তুলি আমরা। লিইখে যা করেন কইরেন? আমাদের বালু তোলা বন্ধ করতে পারবেন না।’

আরেক বালু উত্তোলনকারী আওনা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য কুলপাল গ্রামের বাসিন্দা হাফিজুর রহমান বলেন, ‘আমাদের জমি থেকে বালু তুলি, আপনাদের কী? বালু তোলার মাধ্যমে নদী শাসন করে দিচ্ছি। পাড় ভাঙে গেলে আমাদের কী হইব?’

আওনা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা বেল্লাল হোসেন বলেন, নদী থেকে বালু উত্তোলনকারীদের দমন করতে না পারলে যমুনার পূর্ব তীর সংরক্ষণ বাঁধ সামনে ভেঙে যাবে।

জানতে চাইলে সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিহাব উদ্দিন আহমদ বলেন, এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জামালপুরের পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাইদ বলেন, নরপাড়া-রাধানগর যমুনা পূর্ব তীর সংরক্ষণ বাঁধ নির্মাণে ২০০ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। তীর সংরক্ষণের প্রকল্পের কাজ মাত্রই শেষ হয়েছে। এ মুহূর্তে তীর সংরক্ষণ বাঁধের কাছ থেকে বালু উত্তোলন করা হলে বর্ষা এলে বাঁধ যমুনা নদীর ভাঙনে বিলীন হয়ে যাবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রায়ই ওই এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। এরপরও তীরের পাশ থেকে কেউ বালু উত্তোলন করতে যাতে না পারে, সেদিকে তাঁরা লক্ষ রাখছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন