আজ ওই গৃহবধূর স্বামী সাংবাদিকদের বলেন, প্রতিদিনের মতো গতকাল রাতের খাবার খেয়ে তিনি নৈশপ্রহরীর কাজে চলে যান। পরে তাঁর স্ত্রী শিশুসন্তানকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। দিবাগত রাত দুইটার দিকে চুরি করতে এসে এক ব্যক্তি ঘরে ঢুকে ধারালো অস্ত্রের মুখে তাঁর স্ত্রীকে ধর্ষণ করেন। পরে ওই ব্যক্তি ঘরে থাকা ৪৭ হাজার টাকা, তাঁর স্ত্রীর কানের সোনার দুল ও গলার একটি চেইন নিয়ে পালিয়ে যান। আজ ভোরে তাঁর স্ত্রী ফোন করে ঘটনা জানালে তিনি বিষয়টি পুলিশকে জানান।

গৃহবধূর স্বামীর অভিযোগ, চাচাতো ভাই সজল মল্লিকের সঙ্গে জমি নিয়ে আগে থেকেই তাঁর বিরোধ আছে। সেই বিরোধের জেরে সজল বাইরে থেকে ভাড়া করা লোক এনে তাঁর স্ত্রীর ওপর শারীরিক নির্যাতন চালিয়েছেন। তাঁর স্ত্রী অভিযুক্ত ধর্ষককে চিনতে পেরেছেন।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ (সদর সার্কেল) সুপার মো. মাহমুদ হাসান বলেন, এক বাড়িতে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তি চুরি করতে এসে গৃহবধূকে ধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ পেয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে সজল নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তথ্য-উপাত্ত নিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে। আর গৃহবধূর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে তাঁকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।