বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নেত্রকোনার পুলিশ সুপার মো. আকবর আলী মুন্সী প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা সব বিষয় মাথায় নিয়ে ঘটনাটি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছি। রান্নাঘরে থাকা একটি রেস্তোরাঁ থেকে আনা দুটি খাবারের প্যাকেট ও বোতলের জুস পরীক্ষা করা হচ্ছে। এ ছাড়া বাবা ও সন্তানের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষার জন্য আবেদন করা হবে। দুটি মুঠোফোন ও সিসি ক্যামেরার ফুটেজ জব্দ করা হয়েছে। থানা-পুলিশের পাশাপাশি সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিট ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সদস্যরা এ বিষয়ে কাজ করছেন।’

এদিকে নেত্রকোনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার শাকের আহমেদ বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ছালমা খাতুনকে থানায় নেওয়া হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। আর বাবা–ছেলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আবদুল কাইয়ুম সরদারের বাড়ি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার গোপালের খামার গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের আক্কাস সরদারের ছেলে। তিনি নেত্রকোনায় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের অফিস সহায়ক হিসেবে চাকরি করতেন। শহরের নাগড়া এলাকার বাসায় স্ত্রী-সন্তানসহ বাস করতেন।

এলাকার কয়েক বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আবদুল কাইয়ুম সরদার ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার ফকিরগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা আসাদ আলীর মেয়ে ছালমা খাতুনকে (২১) বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকে কাইয়ুম সরদার স্ত্রীকে নিয়ে তাঁর কর্মস্থল নেত্রকোনায় বসবাস করছিলেন। ওই বছরের ডিসেম্বরে তাঁদের ছেলের জন্ম হয়।

এক বছর ধরে নাগড়া এলাকায় রহুল আমিন নামের এক ব্যক্তির বাসার পাঁচতলায় একটি ইউনিট ভাড়া নিয়ে থাকছিলেন কাইয়ুম সরদার। ভবনটির মালিক রহুল আমিনের গ্রামের বাড়ি বরিশালে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে কাইয়ুম ও তাঁর দুই বছরের শিশুর মৃত্যুর খবর শুনে পুলিশ লাশ দুটি উদ্ধার করে।

আবদুল কাইয়ুমের স্ত্রী ছালমা খাতুনের ভাষ্য, প্রতিদিনের মতো গতকাল বুধবার রাতে খাবার খেয়ে তাঁরা এক বিছানায় ঘুমিয়ে পড়েন। আজ ভোর পাঁচটায় জেগে উঠে পাশের কক্ষে একটি ফ্যানের সঙ্গে স্বামী ও সন্তানের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান তিনি। পরে তিনি রশি কেটে লাশ দুটি নামিয়ে ফেলেন। এরপর বাসার দরজা খুলে বিষয়টি প্রতিবেশীদের জানান। পরে স্থানীয় লোকজন পুলিশে খবর দেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন