default-image

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে গৃহপরিচারিকা এক কিশোরীকে (১৫) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সোমবার রাত ১০টায় উপজেলার পুঁইছড়ি এলাকায় এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে দুজনকে আটক করেছে পুলিশ।

আটক দুজন হলেন উপজেলার ছনুয়া ইউনিয়নের খুদুকখালী গ্রামের মৃত নুর আহাম্মদের ছেলে আবুল বশর (৪৫) ও পুঁইছড়ি ইউনিয়নের পূর্ব পুঁইছড়ি গ্রামের আবদুল মালেকের ছেলে মো. জমির (৩৫)। ওই কিশোরীর বাড়ি কক্সবাজার জেলার চকরিয়ায়।

বাঁশখালী থানার পুলিশ ও কিশোরীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ওই কিশোরীর বাবা একজন দিনমজুর। ওই কিশোরী চট্টগ্রাম শহরে গৃহপরিচারিকার কাজ করত। ১৮ অক্টোবর ওই কাজ ঠিক করে দেন বাঁশখালীর ছনুয়া ইউনিয়নের খুদুকখালী গ্রামের মৃত নুর আহাম্মদের ছেলে আবুল বশর (৪৫)। সোমবার বিকেলে চট্টগ্রামের বাসার মালিক ওই গৃহপরিচারিকাকে কাজে রাখবেন না বলে জানালে আবুল বশর তাকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে শহর থেকে বের হন। তাঁরা বাঁশখালী হয়ে চকরিয়ার উদ্দেশে রওনা দেন।

বিজ্ঞাপন

রাত ৯টায় প্রেমবাজার এলাকায় গাড়ি থামিয়ে ওই কিশোরীকে চা-নাশতা করার কথা বলে নামান বশর। এরপর চকরিয়ার রাস্তা বলে পুঁইছড়ির সড়ক দিয়ে হাঁটা শুরু করেন। এ সময় বশরের সঙ্গে যোগ দেন মো. জমির। একপর্যায়ে রাত ১০টার দিকে একটি ধানখেতে নিয়ে দুজনে কিশোরীকে ধর্ষণ করেন। একপর্যায়ে কিশোরীর চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করলেও পালিয়ে যান বশর ও জমির। খবর পেয়ে বাঁশখালী থানার পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে ওই দুজনকে আটক করে।

বাঁশখালীর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম মজুমদার বলেন, ঘটনার পরপরই অভিযান চালিয়ে দুজনকে আটক করা হয়েছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য কিশোরীকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

মন্তব্য পড়ুন 0