বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রত্যাহারের কারণ জানতে চাইলে আবদুস সালাম প্রথম আলোকে বলেন, এই সরকারের অধীন জাতীয় কিংবা স্থানীয় কোনো নির্বাচনেই বিএনপি অংশ নিচ্ছে না। তৈমুর আলম দলীয় পদ ব্যবহার করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। নির্বাচন বিষয়ে দলের স্পষ্ট অবস্থান হলো, বিএনপি এই নির্বাচনে নেই। এই প্রত্যাহার আদেশ তারই প্রমাণ। নির্বাচনে তৈমুর আলমের থাকা না থাকার সঙ্গে বিএনপির কোনো সম্পর্ক নেই।

নারায়ণগঞ্জের জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতারা যেন নির্বাচনে অংশ না নেন, সে বিষয়ে দল থেকে তাঁদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল উল্লেখ করেন আবদুস সালাম। তিনি বলেন, দলীয় নির্দেশ উপেক্ষা করে কেউ তৈমুর আলমের প্রচারণায় অংশ নিলে দল তাঁদের বিষয়েও অবস্থান নেবে। পদ-পদবি নিয়ে কেউ দলের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন না বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

এ বিষয়ে কথা বলতে তৈমুর আলমের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি কল ধরেননি। তাঁর ভাই নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক মাকসুদুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, প্রত্যাহারের কোনো চিঠি তাঁদের হাতে আসেনি। তৈমুর আলম নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত।

তৈমুর আলম খন্দকার নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তিনি হাতি প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনের মাঠে আছেন। এই নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সেলিনা হায়াৎ আইভী নৌকা প্রতীক নিয়ে মেয়র পদে নির্বাচন করছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন